৭ ছাত্রকে পিটিয়েছে সেই ইসলামিক বক্তা

বহুল আলোচিত-সমালোচিত ইসলামিক বক্তা আবদুর রাজ্জাক বিন ইউসুফের নাতির বিরুদ্ধে টাকা চুরির অভিযোগ করায় চতুর্থ শ্রেণির মাদরাসার এক শিক্ষার্থীকে নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে আবদুর রাজ্জাক বিন ইউসুফের মেজো ছেলে ইসলামিক বক্তা আবদুর রহমানের বিরুদ্ধে। বর্তমানে নির্যাতনের শিকার ওই শিক্ষার্থীকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

তবে এ ঘটনায় থানায় অভিযোগ করা হলেও এখনও কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ। নির্যাতনের শিকার ওই শিশুটির পরিবারের সদস্যরা জানিয়েছেন, ১২ বছর বয়সী রামিম ইসলাম রিফাতকে কোরআনের হাফেজ করার স্বপ্ন নিয়ে রাজশাহী পবার ডাংঙ্গীপাড়া এলাকার আল-জামিআহ আস সালাফিয়া মাদরাসায় ভর্তি করেন তার পরিবার।

কিন্তু মাদরাসাটির অধ্যক্ষ আবদুর রাজ্জাক বিন ইউসুফের নাতির বিরুদ্ধে টাকা চুরি অভিযোগ করায় পাশবিক নির্যাতনের শিকার হয়েছেন রামিম। বর্তমানে ওই শিশুটি রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ২৪নং ওয়ার্ডে অসহ্য ব্যথার যন্ত্রণায় কাতরাচ্ছেন। নির্যাতনের রামিমের বাবা মেরাজুল ইসলাম রিন্টু জানিয়েছেন, ১৬ মার্চ মাদরাসার দুই শিক্ষার্থীর টাকা হারানোর ঘটনা ঘটে।

এ সময় আবদুর রহমানের ভাইয়ের ছেলে এবং ওই মাদরাসার চতুর্থ শ্রেণির শিক্ষার্থীর বিরুদ্ধে টাকা চুরির অভিযোগ তোলেন রামিম। এতেই ক্ষিপ্ত হয়ে পাইপ দিয়ে বেপরোয়া পেটাতে থাকেন আবদুর রহমান। এ সময় বেশ কয়েকবার রামিম জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন। পরে পরিবারের সদস্যরা রামিমকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করেন।

আল-জামিআহ আস সালাফিয়া মাদরাসার প্রশাসনিক কর্মকর্তা মাহিদুল আলম মাহির জানিয়েছেন, ওইদিন রামিম ছাড়া আরও ছয় ছাত্রকে পেটানো হয়েছে। এ বিষয়ে নগরীর শাহমখদুম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মেহেদী হাসান জানান, মাদরাসায় শিশু নির্যাতনের অভিযোগ পাওয়া গেছে। তদন্তসাপেক্ষে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Sharing is caring!

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*