৩ বাংলাদেশির সাথে ২ তারকা ধারাভাষ্যকার থাকছে অজি সিরিজে!

চার বছর পর বাঘের ডেরায় ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া। তবে করোনাকালে পাল্টে গেছে আগের সব হিসেব নিকেষ। বরাবরই নিরাপত্তাকে প্রাধান্য দেয়া নাক উঁচু অজিরা, এবার কোভিড প্রোটোকলে নিয়ে আরো কঠোর।এরইমধ্যে স্বাগতিক বাংলাদেশ ও সফরকারী অস্ট্রেলিয়ার মধ্যকার পাঁচ ম্যাচ টি-টোয়েন্টি সিরিজের ধারাভাষ্য প্যানেল চূড়ান্ত হয়েছে। যেখানে নিরাপত্তাকে প্রাধান্য দেওয়া হয়েছে।

অর্থাৎ, কোয়ারেন্টিনের কঠোর নিয়মকানুনের কারণে অস্ট্রেলিয়ার ধারাভাষ্যকাররা বিদেশ সফরে না যাওয়ায় স্কোয়াডে নেই তারা। এই সিরিজে তিন জন বাংলাদেশি ধারাভাষ্যকারের সাথে থাকবেন দুই জন বিদেশি ধারাভাষ্যকার। ৩ আগস্ট থেকে শুরু হতে যাওয়া সিরিজে বাংলাদেশি ধারাভাষ্যকার হিসেবে থাকছেন আতহার আলী খান, শামীম আশরাফ চৌধুরী ও মাজহার উদ্দিন অমি।

এছাড়া বিদেশি ধারাভাষ্যকার হিসেবে থাকছেন ভারতের আনজুম চোপরা ও শ্রীলঙ্কার ফারভেজ মাহারুফ। এর আগে, অস্ট্রেলিয়ার ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরেও অজি কোনো ধারাভাষ্যকার ছিলেন না। মূলত অস্ট্রেলিয়া সরকারের কোয়ারেন্টিনের কঠোর নিয়মকানুনের কারণেই বিদেশ সফরে যাচ্ছেন না অস্ট্রেলিয়ার ধারাভাষ্যকাররা।

আগামী ৩ আগস্ট থেকে শুরু হবে বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া টি-টোয়েন্টি সিরিজ। সিরিজের বাকি চারটি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে ৪, ৬, ৭ ও ৯ আগস্ট। এক সপ্তাহের ব্যবধানে পাঁচটি ম্যাচ মাঠে গড়াবে। ‘হোম অব ক্রিকেট’ খ্যাত মিরপুরের শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে প্রতিটি ম্যাচ মাঠে গড়াবে সন্ধ্যা ৬টায়।

আগামী অক্টোবরে শুরু হবে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের এবারের আসর। দুই দলেরই বিশ্বকাপ প্রস্তুতির ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে এই সিরিজ। এদিকে, নানা শর্ত আর নিয়মের বেড়াজালে বন্দি অস্ট্রেলিয়া বাংলাদেশ টি-টোয়েন্টি সিরিজ। এবার আর শুধু বায়ো বাবলের কড়াকড়ি নয়, সীমিত হয়েছে গণমাধ্যমকর্মী কিংবা বোর্ড পরিচালকদের চলাচলও। মাঠে থাকছেনা কোন ব্রডকাস্টারের ক্যামেরা, নিরাপত্তার চাদরে ঢেকে ফেলা হবে গোটা স্টেডিয়াম পাড়া।

অস্ট্রেলিয়ার শর্ত মেনে ক্রিকেটার, অফিসিয়াল, গ্রাউন্ডসম্যান, ব্রডকাস্টার, আম্পায়ার্সসহ সংশ্লিষ্ট সবাই আছেন রুম কোয়ারেন্টিনে। ১০ দিনের এই শর্ত পূরণ করতে না পারায় খেলা হচ্ছে না মুশফিক-লিটনদের। একই কারণে নেই বিসিবির প্রধান পিচ কিউরেটর গামিনি ডি সিলভাও।

বোর্ড পরিচালকদের জন্য হোম অব ক্রিকেটের সদর দরজা বন্ধ হয়ে গেছে আরো আগে। কার্যালয়ে গাড়ি প্রবেশেও আছে বাধ্যবাধকতা। ২ নম্বর গেট নয় বরং ৪ নম্বর দিয়ে ঢুকতে হবে সবাইকে। অতিরিক্ত সতর্কতা হিসেবে বিসিবি প্রেসিডেন্ট ছাড়া আর কেউ ব্যবহার করতে পারবেন না লিফট। এমনকি ভিআইপি স্ট্যান্ডেও খেলা দেখার সুযোগ হবে হাতে গোনা কয়েকজনের।

কোভিডকালে এমনিতেই মিরপুরে গণমাধ্যমকর্মীদের চলাচল হয়েছে নিয়ন্ত্রিত। এ সিরিজে সতর্কতা থাকছে আরো এক ধাপ বেশি। সীমিত সংখ্যক মিডিয়া হাউজ পাচ্ছে অ্যাক্রেডিটেশন। ম্যাচের আগে অনুশীলনের ফুটেজ সংগ্রহ করতে হবে নির্দিষ্ট দূরত্বে। এমনকি ম্যাচ চলাকালীন সীমিত হবে চলাফেরা।

Sharing is caring!

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*