‘হার্দিক দ্বিপাক্ষিক সিরিজের ক্রিকেটার, স্টোকস বড় মঞ্চের’

অলরাউন্ডার হিসেবে বিশ্ব ক্রিকেটে ইতোমধ্যে নিজের কার্যকারীতা প্রমাণ করেছেন বেন স্টোকস। বড় মঞ্চে পারফর্ম করার সঙ্গে ইংল্যান্ডকে জিতিয়েছেন ওয়ানডে বিশ্বকাপও। অলরাউন্ডার হিসেবে সুখ্যাতি রয়েছে হার্দিক পান্ডিয়ারও। তবে তাদের দুজনকে এক কাতারে রাখতে চান না রশিদ লতিফ। হার্দিকের চেয়ে স্টোকসকে এগিয়ে রাখছেন পাকিস্তানের সাবেক অধিনায়ক।

২০১৬ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে শেষ ওভারে ২৩ রানের সমীকরণ মিলিয়ে শিরোপা জিতেছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজ। সেদিন শেষ ওভারে টানা চার বলে চার ছক্কা দিয়েছিলেন স্টোকস। বছর সাতেক হওয়া সেই ফাইনালে ভিলেন হলেও ইংলিশদের নায়ক হতে সময় নেননি অভিজ্ঞ এই অলরাউন্ডার।

ঘরের মাঠে হওয়া বিশ্বকাপের ফাইনালে দুর্দান্ত এক ইনিংস খেলে ইংল্যান্ডকে স্বপ্নের সোনালি ট্রফি এনে দেন স্টোকস। একা হাতে ইংলিশদের জিতিয়েছেন হেডিংলি টেস্টের মতো গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচও। বড় ম্যাচে বরাবরই নিজেকে প্রমাণ করেছেন স্টোকস। এমন বড় ম্যাচে হার্দিক অবশ্য চোখে পড়ার মতো পারফর্ম করতে পারেননি।

ব্যাটিংয়ের পাশাপাশি বর্তমানের বোলিং দিয়েও দলের জন্য কার্যকরী ভূমিকা রাখছেন হার্দিক। ইনজুরি কাটিয়ে ফেরার বেড়েছে হার্দিকের ব্যাট ও বলের ধার। তবে ভারতের এই অলরাউন্ডারকে স্টোকসের সমকক্ষ ভাবতে নারাজ রশিদ লতিফ। তিনি মনে করেন, স্টোকস বড় মঞ্চের আর হার্দিক দ্বিপাক্ষিক সিরিজের ক্রিকেটার।

নিজের ইউটিউব চ্যানেলে রশিদ লতিফ বলেন, ‘সে (হার্দিক) খুব ভালো খেলোয়াড় তাতে সন্দেহ নেই। কিন্তু সেটা দ্বিপাক্ষিক সিরিজে। আপনি দ্বিপাক্ষিক সিরিজে এমন ইনিংস দেখেন। সম্প্রতি এশিয়া কাপ শেষ হয়েছে সেই পারফরম্যান্সও আপনাকে হিসেব করতে হবে। আমি আজকের ম্যাচের (অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে প্রথম টি-টোয়েন্টি) কথা বলছি না। তবে বেন স্টোকস প্রমাণিত। সে বিশ্বকাপ জিতেছে এবং ইংল্যান্ডের হয়ে টেস্ট জিতেছে।’

‘আপনি যখন মাঠের পারফরম্যান্স নিয়ে কথা বলবেন তখন আমার মনে হয় না তাদের তুলনা করতে পারবেন। কারণ ট্রফি তো ট্রফিই। সেদিক থেকে হার্দিকের চেয়ে বেশ এগিয়ে স্টোকস। হ্যাঁ, এটা ঠিক যে হার্দিকের বেশ কিছু ইনিংস রয়েছে যা স্টোকসের চেয়ে ভালো। স্টোকসের চেয়ে ভালো হওয়া আর ভালো ইনিংস থাকা দুটি ভিন্ন জিনিস।

Sharing is caring!