সোহানের ক্যামিওতে বাংলাদেশের লড়াইয়ের পুঁজি

বাংলাদেশ- ১৩৭/৮ (২০ ওভার) (শান্ত ৩৩, লিটন ১৫, আফিফ ২৬, সাকিব ১৬, সোহান ২৫*)

ত্রিদেশীয় সিরিজে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে আগে ব্যাট করে ৮ উইকেটে ১৩৭ রান করেছে বাংলাদেশ। শেষদিকে ১২ বলে ২৫ রানের ক্যামিও ইনিংস খেলেছেন নুরুল হাসান সোহান। বাংলাদেশের ইনিংসের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ইনিংসটি এসেছে আফিফ হোসেন ধ্রুবর ব্যাট থেকে। তিনি করেছেন ২৪ রান।

আফিফ-সাকিবের বিদায়-একপ্রান্ত আগলে রেখে দারুণ খেলতে থাকলেও ইনিংস বড় করতে পারেননি আফিফ। তিনি ২৬ বলে ২৪ রান করে বোল্টের বলে বোল্ড হয়েছে। ব্যাটিং অর্ডার বদলে এদিন ৭ নম্বরে নেমেছিলেন সাকিব। ১৬ বলে ১৬ রান করে তিনি সাউদির বলে গাপটিলের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফিরেছেন। শেষদিকে তাসকিন আহমেদ টপ এজ হয়ে বোল্টের বলে চ্যাপম্যানকে ক্যাচ দিয়েছেন।

৫ উইকেট হারিয়ে বিপদে বাংলাদেশ।ইস সোধির দ্বিতীয় শিকার হয়ে ফিরে গেছেন মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত। আগের ম্যাচে দারুণ খেলা ইয়াসির আলী রাব্বি এদিন উইকেটে থিতু হতে পারেননি। ব্রেসওয়েলকে লং অন দিয়ে উড়িয়ে মারতে গিয়ে ৯ বলে ৭ রান করে ফিরেছেন রাব্বি। তিনি ক্যাচ দিয়েছেন মিলনেকে।

ফিরলেন লিটন শান্ত- এদিন ব্যক্তিগত শূন্যরানেই জীবন পেয়েছেন লিটন দাস। তিনি ট্রেন্ট বোল্টের বলে পয়েন্ট দিয়ে উড়িয়ে মারতে চেয়েছিলেন। যদিও দারুণ প্রচেষ্টায় সেই ক্যাচ প্রায় লুফে নিয়েছিলেন জিমি নিশাম। তবে শরীরের ভারসাম্য সামলাতে না পেরে ক্যাচ ফসকান তিনি।

অন্যপ্রান্তে সাবলীল ব্যাটিং করছেন শান্ত। একের পর এক চারে স্ট্রাইক রোটেড করে বাংলাদেশের রানের চাকা সচল রেখেছেন তিনি। পাওয়ার প্লেতে বাংলাদেশের সংগ্রহ ছিল এক উইকেট হারিয়ে ৪১ রান। পাওয়ার প্লের পর অবশ্য ইনিংস বড় করতে পারেননি লিটন।

তিনি ১৬ বলে ১৫ রান করে মিচেল ব্রেসওয়েলের বলে তাকেই শার্প ক্যাচ দিয়েছেন। এরপর শান্ত ব্যক্তিগত ৩৩ রানে আউট হয়েছেন ইস সোধিকে লং অফ দিয়ে উড়িয়ে মারতে গিয়ে। এই ইনিংস খেলার পথে ৪টি চার মেরেছেন বাঁহাতি এই ব্যাটার।

শুরুতেই ফিরলেন মিরাজ- এই ম্যাচে বাংলাদেশের একাদশে নেই সাব্বির রহমান, নাসুম আহমেদ ও মুস্তাফিজুর রহমান। একাদশে ফিরেছেন নাজমুল হোসেন শান্ত, শরিফুল ইসলাম ও সাকিব আল হাসান।

এদিন বাংলাদেশকে ভালো শুরু এনে দিতে পারেননি মেহেদী হাসান মিরাজ ও শান্ত। দলীয় ১২ রানেই বাংলাদেশ মিরাজের উইকেট হারায়। তিনি টিম সাউদির বলে মিড উইকেটে অ্যাডাম মিলনের হাতে ক্যাচ দিয়ে আউট হন মাত্র ৫ রান করে।

Sharing is caring!