সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবেন সাব্বির

তিন বছর পর এশিয়া কাপ দিয়ে জাতীয় ক্রিকেট দলে ফিরেছিলেন সাব্বির রহমান। তেমন কোনো পারফরম্যান্স না করলেও বাকিদের ব্যর্থতা তার জন্য খুলে দিয়েছিল জাতীয় দলের দরজা। এরপর অবশ্য পারফর্ম করতে ব্যর্থ হওয়ায় বিশ্বকাপের চূড়ান্ত দল থেকে বাদ পড়েন তিনি।

রোববার (১৬ অক্টোবর) দেশের একটি গণমাধ্যম জানায়, জাতীয় দলে ফিরতে সাব্বির পেছনের দরজার আশ্রয় নিয়েছেন। বিসিবির এক পরিচালকের লবিংয়ে জাতীয় দলে ফিরেছেন তিনি। সেদিনই রাতে ফেসবুক লাইভে এসে সে অভিযোগ অস্বীকার করলেন তিনি। সেই সঙ্গে মিথ্যা সংবাদ পরিবেশনকারীদের বিপক্ষে ব্যবস্থা নেওয়ার কথাও জানান তিনি।

কোনো ধরনের পারফর্ম না করেই জাতীয় দলে ফিরেছিলেন মারকুটে ব্যাটার সাব্বির রহমান। মূলত ওপেনারদের টানা ব্যর্থতায় মেকশিফট ওপেনার হিসেবে তাকে দলে নিয়েছিল টিম ম্যানেজমেন্ট। সুযোগ পেয়েছিলেন বিশ্বকাপের দলেও। কিন্তু এ দফায় ফিরে চার ম্যাচ খেলেও ব্যর্থ হয়েছেন তিনি। তাই বাদ পড়েন অস্ট্রেলিয়াগামী বিশ্বকাপের চূড়ান্ত দল থেকে।

রোববার সকালে দেশের একটি গণমাধ্যম সাব্বির রহমানের দলে ফেরা নিয়ে চাঞ্চল্যকর খবর প্রকাশ করে। পত্রিকাটি এক রিপোর্টে দাবি করে, বিসিবির এক পরিচালকের সঙ্গে লবিং করে দলে ফিরেছেন সাব্বির। কিন্তু এমন অভিযোগ অস্বীকার করেছেন তিনি। সেই সঙ্গে সংবাদ প্রচারে দায়িত্বশীল আচরণ করার অনুরোধ করেন ৩০ বছর বয়সী তারকা।

রোববার রাত সাড়ে নয়টায় তার অফিসিয়াল ফেসবুক পেজ থেকে লাইভে আসেন সাব্বির। সেখানেই তিনি দাবি করেন, গণমাধ্যমে প্রচারিত খবরটি বস্তুনিষ্ট নয়, বরং ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ ও এ দলের হয়ে ভালো পারফর্ম করাতেই তাকে ফের জাতীয় দলে বিবেচনা করেছেন নির্বাচকরা।

সাব্বির বলেন, ‘আশা করব, সাংবাদিক ভাইয়েরা এসব নিউজ করা থেকে বিরত থাকবেন। দেশে তো নিউজের কমতি নেই। বিশ্বকাপ নিয়ে যদি বলি। বিশ্বকাপ থেকে বাদ পড়ায় আমার কোনো ইমোশন নাই। দেশে আর ওয়েস্ট ইন্ডিজে ভালো খেলার কারণে দলে নিয়েছিল। কিন্তু ৪ ম্যাচে খারাপ করেছি। সেই কারণেই কিন্তু বাদ পড়েছি। এটা নিয়ে আমি অখুশি না। দেশের একটা বড় গণমাধ্যম আমাকে নিয়ে নিউজ করেছে, আমি নাকি তদবির করে জাতীয় দলে ঢুকেছি।’

তিনি এই অভিযোগ অস্বীকার করে সাংবাদিকদের তথ্য নিয়ে তারপর সংবাদ পরিবেশনের পরামর্শ দেন। সাব্বির বলেন, ‘সংবাদ পরিবেশনের আগে তথ্য নেওয়াটা খুব গুরুত্বপূর্ণ। কারণ এটার সঙ্গে মানুষের ব্যক্তিগত জীবনও জড়িত থাকে। এটা আমার প্রতি ব্যক্তিগত আক্রমণ। আমার পরিবারের প্রতি আক্রমণ। আমি যদি ম্যানেজমেন্টের সঙ্গে লবিং করে দলে ঢুকতাম, তবে তো তিন বছর আগেই ঢুকতে পারতাম। তিন বছর দলের বাইরে থাকতাম না।ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ ভালো খেলেছি, এ দলের হয়ে ভালো খেলেছি, তাই জাতীয় দলে ডাক পেয়েছি তিন বছর পর। এ সব কথা অযৌক্তিক। ‘

সেই সঙ্গে সাব্বির তার প্রতি ব্যক্তিআক্রমণের কারণে ব্যবস্থা নেওয়ারও হুমকি দেন। তিনি বলেন, ‘আমি এতদিন কিছু বলিনি, কোন লাইভ করিনি, কিন্তু এটা সীমা ছাড়িয়ে যাওয়ায় বাধ্য হয়েছি আপনাদের সামনে আসার। এটা আসলে আমার জন্যই শুধু নয়, কোন খেলোয়াড়ের জন্যই গ্রহণযোগ্য নয়। এটা আমার পেশাগত জীবনের বাইরে। আমি কোন অন্যায় করিনি বা দেশের কোন বিরোধিতাও করিনি। আমার একটা মানসম্মান আছে, আমার পরিবারের মানসম্মান আছে। দিনশেষে আমার পরিবার এসব দেখে। তারা কষ্ট পায়। আমি এটার ব্যবস্থা নেব।’

এ সময় সাব্বির ম্যানেজমেন্টের সিদ্ধান্তের প্রতি সাধুবাদ জানান। তিনি মনে করেন, তার জায়গায় যিনি সুযোগ পেয়েছেন, যোগ্য বলেই পেয়েছেন। সেই সঙ্গে বিশ্বকাপে বাংলাদেশ ভালো করবে বলেই তিনি বিশ্বাস করেন। বিশ্বকাপে টাইগারদের সমর্থন জানাতে তিনি দেশবাসীর কাছে অনুরধ করেন।

Sharing is caring!