শীতে ঘুম থেকে উঠেই হাঁচি, নিয়ন্ত্রণে যা করণীয়

এই শীতের সময়ে অনেকেই অ্যালার্জির সমস্যায় ভুগছেন। বিশেষ করে যাদের ঠান্ডায় অ্যালার্জির সমস্যা রয়েছে তারা। শীতের সকালে ঘুম থেকে উঠতে না উঠতেই অনেকেরই হাঁচি, কাশি শুরু হয়ে যায়। অ্যালার্জির সমস্যার কারণে অনেকেরই স্বাভাবিক জীবনযাত্রা বিঘ্নিত হয়, আবার অ্যালার্জির সমস্যা এড়াতে গিয়েই বেশির ভাগ মানুষই মারাত্মক কিছু ভুল করে ফেলেন, যা কোনো কোনো ক্ষেত্রে বিপদ আরো বাড়িয়ে দিতে পারে।

যাদের প্রায় প্রতিদিন এই রকম সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়, তাদের জন্য রইল কয়েকটি পরামর্শ-যারা সকালে জগিং বা শরীরচর্চা করেন, তারা শুরুতে মাথা, নাক-মুখ ঢেকে নিলেই ভালো। এতে বাইরের তাপমাত্রার সঙ্গে স্বাভাবিকভাবে মানিয়ে নিতে সুবিধা হবে।

ঘুম থেকে উঠে বিছানা থেকে নেমে মাটিতে পা রাখার আগে সাবধান! ঠান্ডা মেঝেতে খালি পায়ে হাঁটলে মুহুর্তেই ঠান্ডা লেগে হাঁচি, কাশি শুরু হয়ে যেতে পারে। তাই খালি পায়ে হাঁটার অভ্যাস পরিবর্তন করুন।


হাঁচি, কাশি, নাক দিয়ে পানি পড়ার মতো সমস্যায় বাজারে একাধিক কার্যকরী ওষুধ, নাজাল ড্রপ রয়েছে। তবে এগুলো ব্যবহারের আগে অবশ্যই চিকিত্সকের পরামর্শ নেওয়া জরুরি।ঘুম থেকে ওঠার পর বাইরের তাপমাত্রার সঙ্গে মানিয়ে নিতে আমাদের শরীরের বেশ কিছুটা সময় লাগে। তাই সকালে বিছানা থেকে ওঠার পর গায়ে অবশ্যই গরম জামা-কাপড় জড়িয়ে নিবেন।

সহজেই হাঁচির সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে করতে পারেন এ কাজগুলোও-ঠান্ডা ও হাঁচির মতো সমস্যা থেকে তাৎক্ষণিক মুক্তি পাওয়া যায় ভাপ নিলে। হাঁচির সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে পানি ফুটিয়ে তাতে কর্পূর মিশিয়ে ভাপ নিন। এভাবে ভাপ নিলে তাৎক্ষণিকভাবে উপকার পাওয়া যায়।



হাঁচির সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে চাইলে গরম পানি পান করা উপকারী হতে পারে। ঠান্ডা পানি এই সমস্যা বাড়িয়ে তুলতে পারে, তাই হালকা গরম পানি পান করুন। তুলসির ক্বাথ পান করলে হাঁচি ও ঠান্ডায় উপশম হয়। ক্বাথ তৈরি করতে পানিতে তুলসির সঙ্গে আদা ও গোল মরিচ মিশিয়ে ভালো করে ফুটিয়ে নিন। অর্ধেক হয়ে গেলে কুসুম পানিতে মিশিয়ে পান করুন।

Sharing is caring!