যার অভাবে ভুগছে ভারত!

আইসিসি টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনাল মিমাংসা হয়েছে রিজার্ভ ডে তে। বৃষ্টির বাধায় নির্ধারিত পাঁচ দিনে ম্যাচ শেষ না হলে ষষ্ঠ দিনে আট উইকেটে ভারতকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয় নিউজিল্যান্ড। সেই ম্যাচে দুই ইনিংস মিলিয়ে ভারতীয় ব্যাটসম্যানরা খেলেতে পেরেছে ১৬৫.২ ওভার।

সাউদাম্পটনে টসে হেরে প্রথম ইনিংসে ব্যাট করতে নামে ভারত। ট্রেন্ট বোল্ট, টিম সাউদিদের সুইংয়ের সামনে ৯২ ওভার খেলে ভারত অল আউট হয় ২১৭ রানে। যেখানে বিরাট কোহলি আর আজিঙ্কা রাহানে ছাড়া, কেউই বলার মতো তেমন কোন ইনিংস খেলতে পারেনি। আর দ্বিতীয় ইনিংসে ভারতের ইনিংস টিকেছে কেবল ৭৩ ওভার।

এজন্য ব্যাটসম্যানদেরকেই দায় দিলেন সাবেক ভারতীয় ক্রিকেটার মদন লাল। তাঁর মতে রিজার্ভ ডেতে ব্যাটসম্যানরা উইকেটে আরও বেশি সময় কাটাতে পারলে এই টেস্ট ড্র হতে পারতো ভারতের ব্যাটিং প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আজকের দিনে হতাশা হলো আমরা সবাই ভেবেছিলাম এই টেস্ট ড্র হবে। কিন্তু কোনো ব্যাটসম্যানই সেই ধরনের মনোভাব দেখাতে পারেনি।

তারা যদি আরও এক বা দুই ঘন্টা বেশি উইকেটে থাকতে পারত তাহলে এই টেস্ট ড্র হতে পারত। টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের শিরোপা জয়ী নিউজিল্যান্ড দলের প্রশংসা করে তিনি বলেন, ‘এটা নিউজিল্যান্ডের প্রাপ্য ছিল এবং তাদের অধিনায়ক অনেক প্রশংসার দাবিধার।

যেভাবে তারা ফিল্ডিং সাজিয়েছে এবং আমাদের ব্যাটসম্যানদের আউট করেছে, আমি মনে করি এটা (উইলিয়ামসনের) বিশ্বমানের অধিনায়কত্ব। ভারত খারাপ দল না, এটা ভারতের জন্য হতাশার। তারাও ভাল এবং সামঞ্জস্যপূর্ণ দল। কিন্তু আমাদের সমস্যা হচ্ছে সবসময় ঘরের বাইরে রান না করা, এভাবে ম্যাচ জেতা খুবই কঠিন।

দুই ইনিংস মিলিয়ে তরুণ ভারতীয় ওপেনার শুভমন গিল করেছিলেন ৩৬ রান। তবে তার ব্যাটিং ছিল দৃষ্টিনন্দন। তাই মদন বেশ প্রশংসা করেছেন এই ডানহাতি ওপেনিং ব্যাটসম্যানের। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘শুভমন গিল প্রতিভাবান কিন্তু তাকে ধৈর্য্য বাড়াতে হবে। ইংলিশ কন্ডিশনে দীর্ঘ সময় ধরে উইকেটে থাকতে হবে।

সাউদাম্পটনের বাউন্সি উইকেটের সাথে আদ্র আবহাওয়া সব মিলিয়ে বেশ কঠিন ছিল ব্যাটসম্যানদের জন্য। পাশাপাশি বোল্ট, সাউদির মত বিশ্বসেরা পেসারদের সামনে অনেকটাই অসহায় ছিলেন কোহলি, রোহিত শর্মারা। তারপরও ভারত তাদের সামর্থ অনুযায়ী ব্যাটিং করতে পারলে ফলাওফল অন্যরকমও হতে পারত বলে মনে করেন মদন।

Sharing is caring!

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*