মেসিকে বেঞ্চে বসিয়ে রেখে দল গঠন করা হয়নি : রমিজ

বিশ্বকাপের বাকি আর মাত্র হাতেগোনা কয়েকদিন, দলও ঘোষণা করা হয়ে গেছে প্রায় এক মাস হল। তবু পাকিস্তানের বিশ্বকাপ দল নিয়ে সমালোচনা থামছেই না। এবারের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের জন্য পাকিস্তানের যে স্কোয়াড ঘোষণা করা হয়েছে তা অনেকেরই পছন্দ হয়নি।

বিশেষ করে অভিজ্ঞ অলরাউন্ডার শোয়েব মালিককে না নেওয়ায় পিসিবি ও নির্বাচকদের বিষোদগার করেছেন অনেকে।এবার তাদের একহাত নিয়ে পিসিবি চেয়ারম্যান রমিজ রাজা বললেন- তারা লিওনেল মেসিকে বেঞ্চে বসিয়ে রাখেননি যে এত সমালোচনা হবে।

এশিয়া কাপ কিংবা ইংল্যান্ড সিরিজ জিততে না পারলেও পাকিস্তানের পারফরম্যান্স ছিল সমীহ জাগানিয়া। নিউজিল্যান্ডে চলমান ত্রিদেশীয় সিরিজে পাকিস্তান আবার উড়ছে। বাংলাদেশ ও নিউজিল্যান্ডে একটি করে হারের স্বাদ দিয়ে বাবর আজমের দল আছে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে। তবুও ঘুরেফিরেই চলছে পাকিস্তানের বিশ্বকাপ স্কোয়াড নিয়ে সমালোচনা।

আর এই সমালোচনায় চটেছেন পিসিবি চেয়ারম্যান ও পাকিস্তানের সাবেক ক্রিকেটার রমিজ রাজা। তিনি মনে করেন, মানুষজন এমনভাবে স্কোয়াড নিয়ে সমালোচনা করছেন যেন ফুটবল ইতিহাসের অন্যতম সেরা খেলোয়াড় লিওনেল মেসিকে পাকিস্তান বেঞ্চে বসিয়ে রেখেছে।

রমিজ বলেন, ‘ক্রিকেট নিয়ে আমার সুনির্দিষ্ট ভাবনা রয়েছে। একটা দর্শন রয়েছে। প্রথমত, দল গঠনের ব্যাপারে ধারাবাহিকতাকেই আমি সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিতে পছন্দ করি। দ্বিতীয়ত, দলের অধিনায়ককে শক্তিশালী করতে চাই।’

এর পরপরই রমিজ বলেন, ‘আমাদের বেঞ্চে কোনো লিওনেল মেসি বসে নেই। একদম খারাপ ক্রিকেটারদের নিয়েও দল তৈরি করিনি। আমাদের হাতে অপশন সীমিত। অপশন বাড়ানোর জন্য এবং প্রতিভাবান ক্রিকেটারদের তুলে আনার জন্য জুনিয়র স্তর থেকেই কাজ করছি। ওদের কেউ সফল হবে, কেউ হবে না।’

‘আমার প্রধান দর্শন হল অধিনায়ককে শক্তিশালী রাখা। অধিনায়ক কাকে খেলাবে সেটা তার উপর ছেড়ে দেওয়াই ভালো। আমরা যতটা সম্ভব বিকল্প খেলোয়াড় দলকে দিতে চাই।’

অবশ্য অধিনায়কের প্রসঙ্গ তুলে রমিজ নতুন করে বিতর্ককে একটু উসকে দিয়েছেন। সম্প্রতি এশিয়া কাপ ও বিশ্বকাপের দলে ব্রাত্য থাকার পর শোয়েব মালিক দাবি করেছিলেন, পাকিস্তানের তিন ফরম্যাটের অধিনায়ক বাবর আজম নাকি তাকে আর দলে ফেরাতে চাননি।

গত বিশ্বকাপের পর বাবর শোয়েবকে আবারও দলে ফেরানোর আশ্বাস দিলেও বাবরের ইঙ্গিতেই পিসিবি ও নির্বাচকরা আর শোয়েবের কথা ভাবেননি, এমনটি মনে করেন অনেকে। পাকিস্তান এশিয়া কাপের ফাইনালে শ্রীলঙ্কার কাছে হারের পর তাই মালিক স্বজনপ্রীতি নিয়ে একটি ইঙ্গিতপূর্ণ টুইটও করেছিলেন।

Sharing is caring!