মৃ’ত নারীদের ধ.র্ষ”ণ নিয়ে যা বললেন মুন্নার মামা !

রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালের ম’র্গে থা’কা মৃ’ত না’রীদের ধ.র্ষ”ণে”র জ’ঘন্য’তম অপ’রা’ধের অ’ভি’যোগে গ্রে’ফ’তার হয়েছেন মুন্না ভগত (২০) নামে এক ডো’ম সহকারী। এরপর তাকে আ’দালতে তোলা হয়। আ’দালতে স্বী’কারোক্তি’মূলক জ’বানব’ন্দি দি’য়েছেন তিনি। এরপর তাকে কা’রাগা’রে পা’ঠানোর আদেশ দেন আ’দালত।

বিভিন্ন স্থান থেকে যেসব লা’শ ম’য়’নাত’দ’ন্তের জন্য ম’র্গে নেওয়া হতো, সেই লা’শে’র মধ্য থেকে না’রীদের ধ.র্ষ”ণ কর’তেন মুন্না বলে জানায় সিআইডি। সোহরাওয়ার্দী হাস’পাতাল ম’র্গে ডো’ম জ’তন কুমার লা’লের সহযোগী হিসেবে কাজ করতেন গ্রে’ফ’তার হওয়া মুন্না ভ’গত। সম্পর্কে তিনি মা’মা হতেন।

এ বিষয়ে মুন্নার মামা জ’তন কুমার লাল জানান, ‘মুন্না গত দুই-তিন বছর ধরে তার সহযোগী হিসেবে ম’র্গে কা’জ করে। তার বাবা’র নাম দুলাল ভগত। গ্রামের বাড়ি রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ বাজারে। সে আরও দুই-তিন জনের সঙ্গে ম’র্গে’র পা’শে একটি ক’ক্ষেই রা’তে থা’কতো।

তিনি জানান, ‘মু’ন্নাকে হঠাৎ খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিল না। তার মোবাইল নম্বরও বন্ধ। এ কারণে তারা বৃহস্পতিবার (১৯ নভেম্বর) সন্ধ‌্যায় রাজধানীর শেরেবাংলা নগর থা’নায় একটি সা’ধারণ ডায়ে’রি (নম্বর- ১২৩৬) দা’য়ের করেন। জ’তন লাল কুমার আরও জানান, ‘মুন্না মাঝে মধ্যে গাঁ’জা বা নে’শা’টেশা ক’রতো। কিন্তু এ রকম একটি কাজ সে করতে পারে, তা ভা’বতেই পারছি না।

Sharing is caring!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *