মাসুদের দৌড়ানিতে জ্ঞান হারালেন নার্স

এবার চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জে ফরিদা ইয়ামিন(৩৫)নামে এক নার্সকে জুতা নিয়ে দৌড়ানি দেওয়া অভিযোগ উঠেছে মাসুদ নামে এক সাবেক যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে। এ সময় ভয় পেয়ে তিনি অজ্ঞান হয়ে অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। গতকাল রবিবার ২২ জানুয়ারি বেলা সোয়া ১২ টার দিকে শিবগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের এনসিডি কর্ণারে এ ঘটনা ঘটে। মাসুদ শিবগঞ্জ পৌর এলাকার দৌলতপুর সৌদিপাড়া মহল্লার দুরুলের ছেলে ও ৪ নম্বর ওয়ার্ড যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক।


এদিকে ফরিদা ইয়ামিন বলেন, স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের এনসিডি কর্ণারে কর্মরত সকাল থেকে কর্মকর্তা ছিলাম। বেলা সোয়া ১২ টার দিকে আমার কাছ থেকে ডায়াবেটিসের ওষুধ চান মাসুদ। তবে হাসপাতালে ডায়াবেটিসের ওষুধ সরবরাহ না থাকায় মাসুদকে আমি ওষুধ দিতে পারিনি। এতেই আমার ওপর চড়াও হয়ে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজসহ অশালীন আচরণ করেন এবং জুতা খুলে দৌড়ে আসেন আমার দিকে। এ সময় আমি ভয়ে অজ্ঞান হয়ে যায়। পরে পাশে থাকা ব্যক্তিরা আমাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। এ ঘটনায় থানায় লিখিত অভিযোগ দায়েরের প্রস্তুতি নিচ্ছি।



এদিকে মাসুদ অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, নার্সের সঙ্গে শুধু কথা কাটাকাটি হয়েছে মাত্র। আমি অন্যায়ের প্রতিবাদ করেছি। একটি রোগীর সঙ্গে খারাপ আচরণ করেছিলেন ওই নার্স। শিবগঞ্জ পৌর যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক আসিফ আহমেদ সৌরভ বলেন, মাসুদ বর্তমানে কোনো পদে নেই। তবে পূর্বের কমিটিতে তার নাম ছিল।



এ বিষয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. সায়রা খান বলেন, ‘বিষয়টি আমাদের নজরে আছে। কিন্তু এই মুর্হুতে কোনো মন্তব্য করতে পারছিনা।’ এদিকে শিবগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) চৌধুরী জোবায়ের আহাম্মদ মোবাইল ফোনে জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছিল। তবে এ ঘটনায় থানায় কেউ লিখিত অভিযোগ দেয়নি। অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Sharing is caring!