মন্ত্রিসভায় রদবদল, আলোচনায় ৫ নেতা!

বহুমাত্রিক সংকট থেকে উত্তরণের জন্য সরকার আকস্মিকভাবে মন্ত্রিসভার বড় ধরনের রদবদল করতে পারে, এমন গুঞ্জন বিভিন্ন জায়গায়। বাজেট অধিবেশন শেষ হচ্ছে আগামীকাল। বাজেট অধিবেশনের পরপরই মন্ত্রিসভার রদবদল নিয়ে বিভিন্ন মহলে আলোচনা চলছে। সংবিধান অনুযায়ী মন্ত্রিসভার রদবদল শুধুমাত্র প্রধানমন্ত্রীর এখতিয়ারাধীন বিষয়। আওয়ামী লীগের নেতারা বলছেন যে, মন্ত্রিসভার রদবদল করা হবে কি হবে না এটি সম্পূর্ণ প্রধানমন্ত্রীর নিজস্ব বিষয়।

তবে যখনই সরকার একটি জটিল পরিস্থিতির মধ্যে পড়েছে তখনই প্রধানমন্ত্রী মন্ত্রিসভায় যারা হেভিওয়েট নেতা তাদেরকে অন্তর্ভুক্ত করেছেন। ২০১৪ সালে রাজনৈতিক অস্থিরতার সময় প্রধানমন্ত্রী প্রথম মন্ত্রিসভা রদবদলের জন্য তোফায়েল আহমেদ, সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত, রাশেদ খান মেনন এবং হাসানুল হক ইনুকে আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন।

সেই সময় তোফায়েল আহমেদ এবং রাশেদ খান মেনন মন্ত্রিসভায় যোগদানে অপারগতা জানিয়েছিলেন। পরবর্তীতে আবার যখন নির্বাচনকালীন সরকার গঠিত হয় তখন সে নির্বাচনকালীন সরকারে আমির হোসেন আমু, তোফায়েল আহমেদ যোগদান করেন এবং তারা ২০১৪ সালের নির্বাচনের পর গঠিত মন্ত্রিসভাতেও অন্তর্ভুক্ত ছিলেন।

এখন করোনা মোকাবেলায় যে বহুমাত্রিক সংকট দেখা দিয়েছে বিশেষ করে আমলাতন্ত্রের উত্থান এবং স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের নজিরবিহীন ব্যর্থতা, দুর্নীতির কথা জাতীয় সংসদে আলোচিত হচ্ছে এরকম পরিস্থিতিতে প্রধানমন্ত্রী আবার আওয়ামী লীগের হেভিওয়েট নেতাদের মাঠে নামাতে পারেন এমন আলোচনা আওয়ামী লীগের বিভিন্ন মহলে চলছে। যদিও এসব আলোচনা নিছকই গুজব না প্রত্যাশা সে সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

তবে মন্ত্রিসভার রদবদল এখন আওয়ামী লীগের অন্যতম আলোচিত বিষয়। আর এই আলোচনায় ৫ জন নেতার নাম ব্যাপকভাবে আলোচিত হচ্ছে। মনে করা হচ্ছে যে, সঙ্কট সমাধানে প্রধানমন্ত্রী তার পুরনো নেতাদেরকে আবার দায়িত্ব দিতে পারেন। কিন্তু আদৌ প্রধানমন্ত্রী দায়িত্ব দিবেন কিনা তা নিশ্চিত নয়। তবে মন্ত্রিসভার রদবদল নিয়ে আলোচনায় যে ৫ নেতা এসেছেন তাদের মধ্যে রয়েছেন:

আমির হোসেন আমু: আমির হোসেন আমু আওয়ামী লীগ সভাপতির একজন বিশ্বস্ত এবং আস্থাভাজন নেতা ছিলেন ওয়ান-ইলেভেনের আগ পর্যন্ত। ওয়ান-ইলেভেনের পর তার সঙ্গে আওয়ামী লীগ সভাপতির দূরত্বের কথা শোনা যায় কিন্তু তারপরও আওয়ামী লীগের গুরুত্বপূর্ণ নেতা হিসেবে তিনি রয়েছেন।

২০১৪ সালে তিনি শিল্প মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পালন করেছিলেন। রাজনৈতিক দূরদর্শী একজন নেতা হিসেবে তার স্বীকৃতি রয়েছে। এই সংকটকালীন সময়ে মন্ত্রিসভায় আমির হোসেন আমু অন্তর্ভুক্ত হলেন মন্ত্রিসভায় সরকারের আমলাতন্ত্রের প্রভাব কমে যেতে পারে বলে অনেকে মনে করেন।

তোফায়েল আহমেদ: তোফায়েল আহমেদ সংসদে আমলাদের বিরুদ্ধে সরাসরি কথা বলেছেন। তাছাড়া তিনি একজন দক্ষ মন্ত্রী হিসেবে পরিচিত। দুই মেয়াদে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পালন করেছেন অত্যন্ত দক্ষতার সঙ্গে। এই সংকট মোকাবেলায় তোফায়েল আহমেদকেও সামনে নিয়ে আসা হতে পারে বলে অনেকে মনে করেন।

বেগম মতিয়া চৌধুরী: আওয়ামী লীগের মন্ত্রী সভার মধ্যে সবচেয়ে দক্ষ এবং ক্লিন মন্ত্রী হিসেবে মনে করা হয় বেগম মতিয়া চৌধুরীকে। কিছুদিন আগে গুঞ্জন ছিল মতিয়া চৌধুরীকে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় দেয়া হবে কিন্তু সেই গুঞ্জন সত্যিতে পরিণত হয়নি। তবে এখন মতিয়া চৌধুরীকে আবার আরও সক্রিয় দেখা যাচ্ছে। শেষ পর্যন্ত মতিয়া চৌধুরী মন্ত্রিসভায় অন্তর্ভুক্ত হবেন কিনা সেটি বলতে পারেন একমাত্র প্রধানমন্ত্রী।

শেখ ফজলুল করিম সেলিম: তিন মেয়াদে আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় থাকলেও কখনো মন্ত্রী হননি শেখ ফজলুল করিম সেলিম। অথচ তিনি যখন ১৯৯৬-২০০১ মেয়াদে আওয়ামী লীগ সরকারের স্বাস্থ্যমন্ত্রী ছিলেন। সে সময় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় সবচেয়ে ভালো চলেছিল বলে অনেকে মনে করেন।

তবে প্রধানমন্ত্রী তাঁর নিকট আত্মীয়দেরকে মন্ত্রিসভায় নিচ্ছেন না এই বিবেচনা থেকে শেখ ফজলুল হক সেলিমের নাম আলোচনায় থাকলেও শেষ পর্যন্ত মন্ত্রিসভায় থাকবেন না বলেই অনেকে মনে করেন। জাহাঙ্গীর কবির নানক: গত নির্বাচনে মনোনয়ন বঞ্চিত হয়েছিলেন জাহাঙ্গীর কবির নানক। তারপর তাকে পুরস্কৃত করা হয় প্রেসিডিয়ামের সদস্য হিসেবে।

সাম্প্রতিক সময়ে জাহাঙ্গীর কবির নানক অত্যন্ত সক্রিয়, তৎপর দেখা যাচ্ছে। সাম্প্রতিক সময়ে তাকে মন্ত্রিসভায় অন্তর্ভুক্ত করা হতে পারে এমন আলোচনা আওয়ামী লীগের বিভিন্ন মহলে রয়েছে। এসব ব্যক্তির নাম আসছে মূলত আমলাদের নিয়ন্ত্রণমুক্ত সরকার গঠনের প্রত্যাশা থেকে।

আওয়ামী লীগের বিভিন্ন স্তরের নেতাকর্মীরা মনে করছেন মন্ত্রিসভায় যত বেশি প্রভাবশালী রাজনীতিবিদদের অন্তর্ভুক্তি হবে তত আমলাতন্ত্রের প্রভাব ক্ষুণ্ণ হবে। সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রী সচিব কমিটির সভা স্থগিত করেছেন যেটি রোববার হওয়ার কথা ছিল। আর এই সভা স্থগিত করার প্রেক্ষিতে মন্ত্রিসভায় রদবদলের গুঞ্জন ছড়িয়ে পড়েছে।

Sharing is caring!

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*