ব্ল্যাক ফাঙ্গাস নিয়ে যেসব জেলায় সতর্কবার্তা!

করো’নাকা’লে প্রতিবেশী ভারতে ম’হামা’রি আকারে ছ’ড়িয়ে পড়া ‘ব্ল্যা’ক ফা’ঙ্গা’স’ বা কালো ছ’ত্রাক নিয়ে উদ্বেগ তৈরি হয়েছে বাংলাদেশেও। এই ছত্রা’কের বি’স্তার ঠেকাতে সীমান্তবর্তী জেলায় জেলায় সতর্কবার্তা পাঠিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, ব্ল্যা’ক ফা’ঙ্গাস যাতে দেশের স্বাস্থ্যসেবায় অতি’রিক্তি চাপ তৈরি করতে না পারে, সেদিকে নজর রাখতে বলা হয়েছে। এ জন্য ছ’ত্রাকজ’নিত চিকিৎসা ও ব্যবস্থাপনা বিষয়ে সুনির্দিষ্ট গাইডলাইন দেয়া হবে আনুষ্ঠানিকভাবে।

আজ রোববার ক’রোনা পরিস্থিতি নিয়ে করা ব্রিফিংয়ে বিষয়টি তুলে ধরেছেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মুখপাত্র অধ্যাপক ডা. নাজমুল ইসলাম। এ নিয়ে জাতীয় পরামর্শক কমিটিসহ অন্য সবার সুপারিশ ও পরামর্শে অনুযায়ী একটি চিকিৎসা ও ব্যবস্থাপনা গাইডলাইন তৈরি করা হবে বলে জানান তিনি।

জানানো হয়, এরইমধ্যে ব্ল্যা’ক ফা’ঙ্গা’স নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেছেন জাতীয় পরামর্শক কমিটি, জনস্বাস্থ্য ও রোগতত্ত্ব নিয়ন্ত্রণ জাতীয় কমিটি এবং স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা। সম্প্রতি পশ্চিমবঙ্গসহ ভারতের অনেকগুলো রাজ্যে ব্ল্যা’ক ফা’ঙ্গা’সে আ’ক্রা’ন্ত বিপুল সংখ্যক রোগী শ’নাক্ত হয়। দেশটিতে এটিকে ম’হামা’রি ঘোষণা করা হয়েছে। এখন পর্যন্ত করো’নার ভারতীয় ভ্যারিয়েন্টে আ’ক্রা’ন্ত ৯ জন রোগী শনা’ক্ত হয়েছে বাংলাদেশে।

করো’না আ’ক্রা’ন্ত ভারতফেরত যাত্রীদের নমুনা সংগ্রহ করে ‘জিনোম সি’কোয়ে’ন্সিং’ করা হচ্ছে বলে জানান অধ্যাপক নাজমুল ইসলাম। তিনি বলেন, ফলাফল পেলে ভারতীয় ভ্যারিয়েন্টে আ’ক্রা’ন্তদের সংখ্যা আরো বাড়বে বলেই ধারণা করা হচ্ছে।

এদিকে, চলতি মে মাসের শুরুর দিকে ভারতে ব্ল্যা’ক ফা’ঙ্গা’সের ব্যাপারে সত’র্কবার্তা দিয়েছিল দেশটির চিকিৎসকরা। এর পর কয়েক সপ্তাহের মধ্যে ৯ হাজারের বেশি মানুষের শরীরে ছ’ত্রাকটির উ’পস্থিতি ধরা পড়ে। এদের মধ্যে মৃ’ত্যু হয়েছে কমপক্ষে ৯০ জনের, কয়েক শ মানুষ এখনো হাস’পাতালে ভর্তি।

নয়াদিল্লির চিকিৎসকরা বল’ছেন, ছ’ত্রাকটি সাধারণত ত্ব’ক, ফু’সফু’স, চোখ ও ম’স্তিষ্কে হা’না দিয়ে থাকে। কিন্তু এবার কো’লনের মধ্যে, পে’টে হা’না ও ক্ষু’দ্রান্তে ক্ষ’ত দেখা দিচ্ছে, যা বিরল ঘটনা। স্যার গ’ঙ্গা রাম হাসপাতালের চিকিৎসকরা জানান, ব্ল্যা’ক ফা’ঙ্গাসকে ‘মিউ’করমাইকোসিস’ বলা হয় চিকিৎসা বিজ্ঞানে। ছ’ত্রাক’ঘটিত বিরল এই রোগের অ’ন্ত্রে প্রবেশ নিয়ে উদ্বেগ তৈরি হয়েছে।

চিকিৎসকদের বরাত দিয়ে আনন্দবাজার পত্রিকা জানিয়েছে, করো’নায় আ’ক্রা’ন্তরাই এই ছ’ত্রাকের আ’ক্র’মণের শি’কার হ’চ্ছেন। ভা’ইরাসটি থেকে সেরে ওঠার পরে অনেককেই সংক্র’মি’ত হতে দেখা যাচ্ছে ছ’ত্রাকে। ভারতের গু’জরাট, তামিলনাড়ু, তেলঙ্গানা, রাজস্থান ও পশ্চিমবঙ্গে ব্ল্যা’ক ফা’ঙ্গা’স বিস্তার লাভ করেছে। এতে করো’নার সঙ্ক’টের মধ্যেই নতুন উ’দ্বেগ ছ’ড়িয়ে পড়েছে ভারতজুড়ে।

Sharing is caring!

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*