বেনজেমার রাতে বার্সার ঘরে তিন পুরষ্কার

দীর্ঘ দুই যুগের অপেক্ষার অবসান হয়েছে ফরাসিদের। ১৯৯৮ সালের পর গত রাতে ফ্রান্সের দ্বিতীয় ফুটবলার হিসেবে ব্যালন ডি’অর জিতেছেন করিম বেনজেমা। এর মাধ্যমে ক্যারিয়ারে প্রথমবারের মতো ফ্রান্স ফুটবল ম্যাগাজিনের পুরষ্কার জিতলেন রিয়াল মাদ্রিদের তারকা স্ট্রাইকার। বেনজেমার রাতে সবচেয়ে সফল ক্লাব ছিল বার্সেলোনা।

সতীর্থ বেনজেমার ব্যালন ডি’অর জেতার রাতটি থিবো কোর্তোয়ার জন্যও ছিল স্মরণীয়। মৌসুমের সেরা গোলরক্ষকের শিরোপা ‘লেভ ইয়াসিন’ জিতেছেন রিয়াল মাদ্রিদের এই বেলজিয়ান তারকা। এরপরও লস ব্লাঙ্কোসদের তুলনায় বেশি খুশি হওয়ার কথা বার্সেলোনার। কারণ একটি কিংবা দুটি নয়, তিনটি পুরষ্কার গিয়েছে কাতালানদের ঘরে।

প্যারিসের তিয়াটর দু শাতলে অনুষ্ঠিত জমকালো ব্যালন ডি’অর নাইট মাতিয়েছেন বার্সেলোনার পুরুষ দলের রবার্তো লেভানডফস্কি ও পাবলো মার্টিন পায়েজ গভিরা এবং নারী দলের অ্যালেক্সিয়া পুটেলাস। ভিন্ন ভিন্ন ক্যাটাগরিতে পুরষ্কার জিতেছেন স্প্যানিশ জায়ান্টদের এই তিন তারকা।

বাকি দুইজনের তুলনায় নিজের দিকে বেশি আলো টেনেছেন পুটেলাস। দ্বিতীয়বারের মতো মেয়েদের ব্যালন ডি’অর ওঠেছে বার্সেলোনা নারী দলের অধিনায়ক এবং মাঝমাঠের এই খেলোয়াড়ের হাতে। গতবারও ফ্রান্স ফুটবল ম্যাগাজিনের সবচেয়ে জনপ্রিয় এই পুরষ্কারটি জিতেছিলেন পুটেলাস।

ইউরোপের সেরা গোলদাতার পুরষ্কার ‘জার্ড মুলার ট্রফি’ জিতেছেন লেভানডফস্কি। পোলিশ স্ট্রাইকার বর্তমানে বার্সেলোনার খেলোয়াড় হলেও এই পুরষ্কার জিতেছেন সাবেক ক্লাব বায়ার্ন মিউনিখের হয়ে খেলে। গত মৌসুমে বাভারিয়ান জায়ান্টদের জার্সিতে জার্মান বুন্দেসলিগায় করেছিলেন ৩৫ গোল।

এছাড়া অনুর্ধ্ব-২১ সেরা ফুটবলারের পুরষ্কার কোপা ট্রফি জিতেছেন গভিরা। এজন্য রিয়াল মাদ্রিদের এডোয়ার্ডো কামাভিঙ্গা ও বায়ার্ন মিউনিখের জামাল মুসিয়ালাকে পেছনে ফেলেছেন বার্সেলোনার ১৮ বছর বয়সী ডিমফিল্ডার। গত বছর এই পুরষ্কারটি জিতেছিলেন গভিরার সতীর্থ এবং কাতালানদের প্রতিভাবান ফুটবলার পেদ্রি গঞ্জালেস।

Sharing is caring!