বিয়ে হয় ঘটা করে, বিচ্ছেদ নীরবে!

ব্যবসায়ী নিখিল জৈনের সঙ্গে ২০১৯ সালে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়েছিলেন টলিউড অভিনেত্রী ও সাংসদ নুসরাত জাহান। জমকালো আয়োজনে তুরস্কে বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা সেরেছিলেন তারা। দাম্পত্যজীবন ভালোই যাচ্ছিল তাদের। স্বামী-সংসার, লাইট-ক্যামেরার কাজ, রাজনৈতিক ময়দান সব সমান তালে সামলাচ্ছিলেন এ অভিনেত্রী।

কিন্তু হঠাৎ করেই নুসরাতের সংসার ভাঙার খবর ছড়িয়ে পড়ে টলিপাড়ায়। প্রথম গুঞ্জন উঠেছিল গেল বছর ডিসেম্বর, সে গুঞ্জন মাথা চাড়া দিয়ে উঠে চলতি বছর জানুয়ারিতে। সব জল্পনা কল্পনা এবার থামিয়ে দিয়েছেন নুসরাতের স্বামী নিখিল। ডিভোর্স চেয়ে নুসরাতকে নোটিস পাঠিয়েছেন তিনি।

গণমাধ্যমে এ খবর প্রকাশ হলে আবারো আলোচনায় নুসরাত-নিখিল। এর আগে বিশ্বস্ত সূত্রে জানা গিয়েছিল, জানুয়ারিতেই স্বামী নিখিলের আলিপুরের অ্যাপার্টমেন্ট ছাড়েন নুসরাত। থাকছেন বালিগঞ্জে নিজের ফ্ল্যাটে। এছাড়া সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম থেকেও একে অপরের সব ছবি ডিলেট করে দিয়েছেন তারা।

সবশেষ, ইনস্টাগ্রামে একে অপরকে আনফলো করে দিয়েছেন। সংসার ভাঙার গুঞ্জন আরও গাঢ় হয়েছিল। নুসরাত-নিখিল দম্পতির মাঝে ঢুকে পড়েছে তৃতীয় ব্যক্তি। তার জন্যই ভেঙেছে এ দম্পতির সংসার। আর অভিযোগের আঙ্গুল অনেক আগেই যশ দাশগুপ্তের দিকে ছিল।

যদিও নুসরাতের সঙ্গে বন্ধুত্বের সম্পর্ক বলে জানিয়েছিলেন যশ। এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেছিলেন, নুসরাতকে আমি চিনি আজ থেকে না। ২০১৭ সালে আমরা একটি সিনেমা করেছিলাম ‘ওয়ান’। শ্রী ভেঙ্কটেশ ফিল্মসের, যে সিনেমায় বুম্বা দা (প্রসেনজিৎ চ্যাটার্জি) ছিল।

তখন থেকেই নুসরাতকে আমি চিনি। নুসরাতের সঙ্গে বন্ধুত্ব অবশ্যই থাকবে। লোকেরা অনেক কিছু বলেছে এটা নিয়ে। আমি জানি, আমার বলাতে স্টেটমেন্ট খুব একটা চেঞ্জ হবে না। লোকেদের যেটা বিশ্বাস করার সেটাই করবে।

জানা গেছে, নিউ নরমাল পরিস্থিতিতে ‘এসওএস কলকাতা’ সিনেমার চিত্রায়ণ করতে গিয়ে যশের সঙ্গে সখ্যতা হয় নুসরাতের। তারপর বিভিন্ন অনুষ্ঠান এবং পার্টিতে একসঙ্গে দেখা গিয়েছিল তাদের। এমনকি রাজস্থান ঘুরতেও গিয়েছিলেন তারা। নুসরাত-যশের সখ্যতার খবর জানতেন তাদের ঘনিষ্ঠজনেরা।

ডিভোর্স প্রসঙ্গে জানতে চাইলে ভারতীয় গণমাধ্যমকে নিখিল জানান, এই বিষয়ে এখনই কিছু বলতে চান না। যা বলার তিনি পরে বলবেন। এদিকে টলিপাড়ার অনেকেই মনে করছেন নুসরাত-নিখিল চ্যাপ্টার এখানের ক্লোজ। যশের সঙ্গে কি নতুন অধ্যায় শুরু করবে নুসরাত? সেটাই এখন দেখার বিষয়।

Sharing is caring!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *