বিশ্বকাপের সেরা বোলার সাকিব

আনন্দবার্তা স্পোর্টস ডেস্ক: চলমান আইসিসি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ শুরুর আগেই নড়বড়ে হয়ে ওঠে শহিদ আফ্রিদির রেকর্ড। কুড়ি ওভারের ক্রিকেট মহাযজ্ঞে রেকর্ড সর্বোচ্চ ৩৯ উইকেট নিয়ে সব বোলারকে নেতৃত্ব দিচ্ছিলেন পাকিস্তানি কিংবদন্তি অলরাউন্ডার। তার রেকর্ড ভাঙার মতো দুজনই ক্রিকেটারই আছেন এই বিশ্বকাপে।

প্রথমজন বাংলাদেশের সাকিব আল হাসান এবং দ্বিতীয়জন ওয়েস্ট ইন্ডিজের ডোয়াইন ব্রাভো। এমনিতেই অনেক পিছিয়ে ক্যারিবীয় তারকা। তার ওপর তিনি মাঠে নামার আগেই আফ্রিদির রেকর্ডে ভাগ বসিয়ে দিলেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার। বাছাইপর্বে তিন ম্যাচে সাকিব নিলেন নয় উইকেট। আফ্রিদির সমান ৩৯টি উইকেট এখন সাকিবেরও।

অপেক্ষা এখন পাকিস্তানি কিংবদন্তিকে ছাড়িয়ে যাওয়ার। সেটা এখন সময়ের ব্যাপার মাত্র। অবিশ্বাস্য কিছু না ঘটলে সুপার টুয়েলভেই আফ্রিদিকে ছাড়িয়ে যাবেন সাকিব। বাংলাদেশি অলরাউন্ডার টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সর্বোচ্চ উইকেট শিকারি হিসেবে সংখ্যাটা কোথায় নিয়ে যান সেটাই এখন বড় রোমাঞ্চ।

এবারের আসর শুরুর আগে সর্বোচ্চ শিকারিদের তালিকায় সাকিব ছিলেন সাত নম্বরে। বাছাইপর্বে তিন ম্যাচ খেলে সাকিব একে একে ছাড়িয়ে গেলেন স্টুয়ার্ট ব্রড (৩০) ডেল স্টেইন (৩০), উমর গুল (৩৫), অজান্তা মেন্ডিস (৩৫), সাঈদ আজমল (৩৬) ও লাসিথ মালিঙ্গাকে (৩৮)। এক হিসেবে আফ্রিদিকেও ছাড়িয়ে গেছেন তিনি।

পাকিস্তানি কিংবদন্তি ৩৪ ম্যাচ খেলে ৩৯ উইকেট নিয়েছেন। তাকে ছুঁতে সাকিবের লাগল ২৮ ম্যাচ। তাও আবার এক ইনিংস বোলিং করেননি। তাই সর্বোচ্চ উইকেট শিকারির তালিকায় সাকিবের নাম শীর্ষে। আফ্রিদি নেমেছেন দুইয়ে। বর্তমান খেলোয়াড়দের মধ্যে সাকিবের পেছনে থাকা ব্রাভোর ২৯ ম্যাচে ২৫ উইকেট আছে।

বাছাইপর্বের প্রথম ম্যাচে স্কটল্যান্ডের বিরুদ্ধে দুই উইকেট নেন সাকিব। পরের ম্যাচে ওমানের তিন ব্যাটারকে শিকারে পরিণত করেন তিনি। আজ মাস্কাটে পাপুয়া নিউগিনির বিপক্ষে তো অগ্নিমূর্তি ধারণ করলেন। চার ওভারে নয় রানের বিনিময়ে চার উইকেট নিয়েছেন সাকিব। বিশ্বকাপে এটাই তার সেরা বোলিং।

এর আগে টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষেও এমন বোলিং করেছিলেন সাকিব। সেটা অবশ্য বিশ্বকাপ ছিল না। দ্বিপাক্ষিক সিরিজ। শুধু বল হাতেই নয়, পিএনজির বিপক্ষে ব্যাট হাতেও আলো ছড়িয়েছেন সাকিব। ৩৭ বলে ৪৬ রানের ইনিংসে বাংলাদেশের বড় সংগ্রহে রেখেছেন অবদান। বাংলাদেশ জিতেছে ৮৪ রানের বিরাট ব্যবধানে। অলরাউন্ডিং পারফরম্যান্সে অবধারিতভাবেই ম্যাচ সেরা হয়েছেন সাকিব।

শুধু বিশ্বকাপের সর্বোচ্চ উইকেট শিকারিই (আফ্রিদির সঙ্গে যৌথভাবে) নন, সম্প্রতি সাকিব ভেঙেছেন আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টেতে সর্বোচ্চ উইকেট নেওয়া মালিঙ্গার রেকর্ড। এই সংস্করণে ৮৪ ম্যাচে ১০৭ উইকেট নিয়ে অবসরে গেছেন শ্রীলঙ্কা কিংবদন্তি। আর ৯১ ম্যাচে সাকিবের উইকেট এখন ১১৫টি।

Sharing is caring!

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*