বিখ্যাত ৫ ভারতীয় ক্রিকেটার, জেনে নিন তাদের শিক্ষাগত যোগ্যতা

একজন ক্রিকেটারের দক্ষতা কখনো তার শিক্ষাগত যোগ্যতার মাপকাঠি দিয়ে বিচার করা যায় না। এই খেলায় কেবলমাত্র তিনি বিখ্যাত হয়ে ওঠেন তার পারফরমেন্সের কারণে। আবার অনেকেই রয়েছেন শিক্ষাজীবনে ভালো হলেও ক্যারিয়ার হিসেবে ক্রিকেটকে বেছে নিয়েছিলেন। তাই খুবই অল্প বয়সে তাদের পড়াশোনায় ইতি টানতে হয়েছিল। আজকের প্রতিবেদনে রয়েছে, যে পাঁচ ভারতীয় ক্রিকেটারদের শিক্ষাগত যোগ্যতা একেবারেই কম; এবার তাদের সম্পর্কে জেনে নেওয়া যাক:-

বিরাট কোহলি:বর্তমান ভারতীয় অধিনায়ক বিরাট কোহলি দিল্লির বিশ্বভারতী এবং সেভিয়ার কনভেন্ট স্কুলে পড়াশোনা করেছিলেন। শচীনের মতোই তারও বড় ক্রিকেটার হওয়ার স্বপ্ন ছিল এবং ক্রিকেটের প্রতি মনোনিবেশ ও কঠোর পরিশ্রম করেছিলেন। তিনি তার ক্রিকেট ক্যারিয়ারে বড় বড় রেকর্ড গড়লেও কখনোই কলেজের গণ্ডি পার করতে পারেননি।

শিখর ধাওয়ান:ভারতীয় ওপেনার শিখর ধাওয়ান দিল্লির সান্ট মার্ক সিনিয়র মাধ্যমিক ও পাবলিক স্কুল থেকে দ্বাদশ পর্যন্ত পড়াশোনা করেছেন। ঘরোয়া ক্রিকেট সহ আইপিএলে দুর্দান্ত পারফরম্যান্স করার পরেই ভারতীয় দলে যোগদান করেছিলেন। এই সময় তিনি ক্রিকেটের জন্য অতিরিক্ত ব্যস্ত হয়ে পড়েন যে কারণে আর কলেজে ভর্তি হতে পারেননি।

জাহির খান:জানা গেছে, প্রাক্তন ভারতীয় ফাস্ট বোলার জাহির খান স্কুল জীবনে পড়াশোনায় খুব ভাল ছিলেন এবং ভালো নাম্বার নিয়ে দ্বাদশ শ্রেণী পাস করেছিলেন। এরপর তিনি ইঞ্জিনিয়ারিংয়েও ভর্তি হন, তবে ক্রিকেটের উন্মাদনা তাকে এতটাই প্রভাবিত করেছিল যে সবকিছু ছেড়ে তিনি ক্রিকেটকেই ক্যারিয়ার হিসেবে বেছে নেন।

যুবরাজ সিং:বিখ্যাত ভারতীয় অলরাউন্ডার তথা বিস্ফোরক ব্যাটসম্যান যুবরাজ সিং মাত্র ১৮ বছর বয়সে অভিষেক করেন। জাতীয় দলের হয়ে খেলার জন্য তিনি প্রচুর পরিমাণে ঘাম ঝরিয়েছিলেন এবং এই সময়ে পড়াশোনায় খুব বেশি মনোনিবেশ করতে পারেননি। চন্ডীগড়ের ডিএভি স্কুলে দ্বাদশ শ্রেণী পর্যন্ত পড়াশোনা করার পর শিক্ষা জীবনে ইতি টানেন।

শচীন টেন্ডুলকার:‘ক্রিকেট ঈশ্বর’ শচীন টেন্ডুলকারের কথা আমরা সকলেই কম বেশি জানি। মাত্র ১৬ বছর বয়সে ভারতীয় দলের হয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলেন। ক্রিকেটের প্রতি অতিরিক্ত ঝোঁক থাকার কারণে পড়াশোনার জন্য খুব বেশি সময় পাননি। ভারত-পাক সিরিজের সময় শচীন টেন্ডুলকার দশম শ্রেণীতেও ব্যর্থ হন এবং পরে দ্বাদশ শ্রেণী পর্যন্ত পড়াশোনা করেছিলেন

Sharing is caring!

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*