বাসস্ট্যান্ডে ব্রিটিশ সেই যু’দ্ধ জাহাজের গোপন নথি ফাঁস!

সম্প্রতি ব্রিটিশ রয়্যাল নেভির একটি ডেস্ট্রয়ার ডি’ফেন্ডারকে লক্ষ্য করে গু”লি ছোঁ”ড়ে রা’শিয়ার নৌবাহিনী। এখানেই শেষ নয়, যু’দ্ধ জা’হাজটির চলাচলের পথেও বো”মা ফে’লা হয় যু’দ্ধ”বিমান থেকে। এ নিয়ে দুই দেশের মধ্যে চলমান উ’ত্তেজনার মধ্যেই এ সংক্রান্ত ৫০ পৃষ্ঠার ‘গোপন প্রতিরক্ষা নথি’ ফাঁ’স হয়েছে।

জানা যয়, ক্রিমিয়া উপকূল অতিক্রম করা ওই ব্রিটিশ ডেস্ট্রয়ারের গোপন ন’থি গত মঙ্গলবার পাওয়া যায় দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলীয় কেন্টের একটি বাস স্টপেজে। দেশটির প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের এসব নথির একটিতে যু’দ্ধ জা’হাজটি নিয়ে সম্ভাব্য রুশ প্রতিক্রিয়া বর্ণনা রয়েছে।

নথিতে উল্লেখ করা হয়েছে, ডেস্ট্রয়ারটি ইউক্রেনের পানিসীমা দিয়ে শান্ত’ভাবে অতিক্রম করে। এ সময় তাতে থাকা অ’স্ত্রগু’লো আ’চ্ছাদিত এবং হে’লিকপ্টারগুলো নি’ষ্ক্রি’য় অবস্থায় ছিল। ব্রিটিশ ডেস্ট্রয়ারটি ক্রিমিয়া উপকূলের ২০ কিলোমিটারের মধ্য দিয়ে অতি’ক্রম করছিল গত বুধবার। তখন সেটির ওপর নজর রাখছিল রুশ কোস্ট গার্ডের দু’টি জাহাজ ও ২০টির বেশি যু’দ্ধ’বিমান।

আফ’গানি’স্তানে ন্যা’টোর দায়িত্ব শেষ হলে দেশটিতে সম্ভাব্য ব্রিটিশ সেনা উপস্থিতির বিস্তারিত তথ্য রয়েছে নথিতে। অতি গোপনীয় এসব নথি ফাঁসের বিষয়ে এরইমধ্যে তদন্ত শুরুর কথা জানিয়েছে ব্রিটিশ সরকার। এ বিষয়ে ব্রিটিশ প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র বলেন, তাদের এক কর্মী নথি হারানোর ব্যাপারে অবহিত করেছেন। তবে স্পর্শকাতর হওয়ায় এ নিয়ে আর কোনো তথ্য প্রকাশ করতে অস্বীকৃতি জানান ওই মুখপাত্র।

এসব নথি পাওয়ার পরই এক ব্যক্তি বিবিসিকে ফোন করে জানান। পরে সেগুলো যাচাই করে ব্রিটিশ প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের পদস্থ এক কর্মকর্তার দপ্ত’রের নথি বলে শনা’ক্ত করে গণমাধ্যমটি। এদিকে, গত বুধবার রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের বিবৃতিতে বলা হয়, ব্রিটিশ ডেস্ট্রয়ারটি জলসীমায় প্রবেশ করলে এভাবেই কঠোর প্রতিক্রিয়া দেখানো হয়। কৃ’ষ্ণ সাগরের ওই ঘটনা ছিল সতর্কতামূলক পদক্ষেপ।

রুশ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র মারিয়া জাখারোভা বলছেন, যুক্তরাষ্ট্রের অনুমোদন ছাড়া ব্রিটেনের যু’দ্ধ’জা’হাজের পক্ষে শত্রুতাপূর্ণ তৎপরতা চালানো একেবারে অসম্ভব। সাম্প্রতিক সময়ে বিতর্কিত ক্রিমিয়া নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র-যুক্তরাজ্যসহ পশ্চিমা দেশগুলোর সঙ্গে উত্তেজনা বিরাজ করছে রাশিয়ার। এমন প্রেক্ষাপটে কয়েক দিন আগে সামরিক জোট ন্যাটো জানায়, তারা রাশিয়া ও চীনের ক্রমবর্ধমান প্রভাব বিস্তার ঠেকাতে কঠোর হচ্ছে।

Sharing is caring!

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*