বাবা মেসির উদ্দেশে ৩ ছেলে গাইল ‘ভ্যামোস আর্জেন্টিনা’ (ভিডিও)

নিজের দুঃখের সঙ্গেসঙ্গে আর্জেন্টিনারও দুঃখ ঘুচালেন লিওনেল মেসি। এতোদিন ধরে যে আক্ষেপে পুড়ছিলেন — দেশকে কিছুই দিতে না পারার, আর্জেন্টিনার জার্সিতে কিছু জিততে না পারার।সেই আক্ষেপ আজ ঘুচেছে। তা-ও আবার রূপকথার মতো জয়। কোপা আমেরিকার ফাইনালে ব্রাজিলের মাটিতে, ব্রাজিলের ঐতিহাসিক মারাকানায় নেইমারকে কাঁদিয়ে ব্রাজিলকে হারিয়েছে আর্জেন্টিনা।

আর্জেন্টাইনভক্তরা হয়তো এই জয়ের সঙ্গে সেই ‘মারাকানা ট্রাজেডির’ সঙ্গে মেলাতে চাইবেন।সে যাইহোক কোপা আমেরিকা জয়ের উল্লাসটা মেসির জন্য একটু বেশিই হতে পারে। টুর্নামেন্টসেরা হয়েছেন, রেকর্ড গড়েছেন বেশ কয়েকটি, সতীর্থ গোলরক্ষক হয়েছেন টুর্নামেন্টসেরা গোলরক্ষক।

এদিকে এই উচ্ছ্বাস বিলিয়ে দেওয়ার জন্য পরিবার পাশে নেই মেসির। করোনার কারণে খেলোয়াড়দের জৈব সুরক্ষা বলয়ে রেখে আয়োজন করা হয়েছে এবারের কোপা আমেরিকা। ফলে প্রায় দেড় মাস ধরে পরিবার পরিজনদের দেখাই পায়নি ফুটবলাররা।

দীর্ঘ ২৮ বছর পর শিরোপা জিতেও পরিবারের কারও সঙ্গে সেই আনন্দ ভাগাভাগি করতে পারছেন মেসি ও তার সতীর্থরা।তবে ঠিকই উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেছেন আর্জেন্টিনা অধিনায়ক লিওনেল মেসির স্ত্রী আন্তোলেনা রকুজ্জো। মেসির সঙ্গে শিরোপা উদযাপন করতে দারস্থ হয়েছেন ইনস্টাগ্রামের।

তবে তাতে কি কাজ হয়! দুধের স্বাদ কি ঘোলে মেটে?তাই ইনস্টাগ্রামে মেসি স্ত্রী রকুজ্জো সরাসরি জানিয়ে দিলেন, একসঙ্গে স্বামীর সাফল্য উদযাপনের তর সইছে না তার।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ইন্সটাগ্রামে মেসিদের উদযাপনের একটি ছবি আপলোড করে আন্তোলেনা লিখেছেন, ‘আমরা চ্যাম্পিয়ন। এগিয়ে যাও আর্জেন্টিনা। এগিয়ে যাও ভালোবাসা (মেসি), এগিয়ে যাও। এতদিন ধরে যা স্বপ্ন দেখেছ, অবশেষে তা পেয়েছ। তুমি সত্যিই এটির যোগ্য দাবিদার। তোমাকে দেখতে ও একসঙ্গে উদযাপনের তর সইছে না আমার।’

ওই পোস্টের পর পরই গান গেয়ে ভিডিও আপলোড করে মেসির তিন ছেলে থিয়াগো মেসি, মাতেও মেসি ও সিরো মেসি।‘ভ্যামোস আর্জেন্টিনা’ গানদি গায় তারা। গানে গানে শিরোপা উদযাপন করতে দেখা গেছে মেসির তিন ছেলেকে।

Sharing is caring!