বাংলাদেশের নেতৃত্বে রফিক, খেলবেন রাজ্জাক-বেলিমরাও

আগামী ৫ মার্চ থেকে ভারতের রায়পুরের ছত্তিশগড়ে মাঠে গড়াবে রোড সেফটি ওয়ার্ল্ড সিরিজ। ৬ দলের এই টুর্নামেন্টে অংশগ্রহণ করবেন বাংলাদেশের সাবেক ক্রিকেটাররাও। বাংলাদেশ ছাড়াও টুর্নামেন্টটিতে খেলতে দেখা যাবে ভারত, ওয়েস্ট ইন্ডিজ, দক্ষিণ আফ্রিকা, ইংল্যান্ড ও শ্রীলঙ্কার সাবেক ক্রিকেটারদের। মূলত অস্ট্রেলিয়া খেলতে না আসায় সুযোগ হয়েছে টাইগারদের।

বাংলাদেশ লিজেন্ডস নামে অংশগ্রহণ করতে যাওয়া দলটির অধিনায়কত্ব করবেন মোহাম্মদ রফিক। সাবেকদের মাঝে রফিক ছাড়াও দলে রয়েছেন আব্দুর রাজ্জাক, খালেদ মাসুদ পাইলট, খালেদ মাহুমদ সুজন, জাভেদ ওমর বেলিম, রাজিন সালেহ, নাফিস ইকবাল ও আফতাবের মতো সাবেক ক্রিকেটাররা। সিরিজটি খেলতে আগামী ২৭ ফেব্রুয়ারি(শনিবার) ভারতের উদ্দেশ্যে দেশ ছাড়বে রফিক-রাজ্জাকরা।

ভারতের বিমানে ওঠার আগে স্কোয়াডে থাকা সবাইকে করোনা নেগেটিভ হতে হবে। এরপর সেখানে পৌঁছে ২ দিনের কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে ক্রিকেটারদের। ২ দিনের কোয়ারেন্টাইন শেষে জৈব সুরক্ষা বলয়ের মাঝে থেকেই খেলতে নামবেন ক্রিকেটাররা। সবধরনের ক্রিকেট থেকে বিদায় নেয়ায় খেলার সুযোগ হয় না সাবেকদের। জাতীয় দলের হয়ে একে অপরের বিপক্ষে খেললেও এখন অনেকের সঙ্গে দেখাও হয় না।

তবে রোড সেফটি ওয়ার্ল্ড সিরিজের কল্যাণে আবারও মাঠে নামার সুযোগ হচ্ছে তাঁদের। এমন একটি টুর্নামেন্টে অংশগ্রহণ করতে পেরে উচ্ছ্বসিত রাজ্জাক। নিজের ভালো লাগা সম্পর্কে ক্রিকফ্রেঞ্জির সঙ্গে আলাপকালে রাজ্জাক বলেন, ‘অবশ্যই এটা ভালো লাগার একটা বিষয়। খেলা নিয়ে যাই হোক না কেন ভালোই লাগে। আগের সব খেলোয়াড়দের সঙ্গে খেলতে পারব।

এদের প্রায় সবার সঙ্গে আমার খেলা হয়েছে। আবারও খেলব ভালোই লাগবে।’ সম্প্রতি দেশের সাবেক ক্রিকেটারদের অংশগ্রহণে কক্সবাজারের শেখ কামাল আন্তর্জাতিক স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত হয়েছে লেজেন্ডস চ্যাস্পিয়ন্স ট্রফি এলসিটি টেন ডট টেন টুর্নামেন্ট। সেখানে ভালো করা বেশ কয়েকজন ক্রিকেটারই জায়গা পেয়েছেন রোড সেফটি ওয়ার্ল্ড সিরিজের বাংলাদেশ লিজেন্ডস স্কোয়াডে।

টুর্নামেন্টটিতে ব্যাট হাতে দারুণ সময় পার করেছেন জাভেদ ওমর। এ ছাড়া ব্যাটে-বলে দারুণ সময় পার করা রফিক টুর্নামেন্টের সেরা খেলোয়াড়ের পুরষ্কার জিতেছেন। এই টুর্নামেন্টে খেলার কারণে রোড সেফটি ওয়ার্ল্ড সিরিজে বাংলাদেশ কিছুটা বাড়তি সুবিধা পাবে বলে বিশ্বাস রাজ্জাকের। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘হ্যাঁ, সবাই দেখা গেছে যে তারা তো সবাই অনেকদিন পরে পরে খেলে।

সবাই ওইখানে খেলেছে এটা একটা ভালো দিক হবে। কারণ যারা খেলছে তাদের একটা আইডিয়া আছে। অনেকে আছে যে ভুলেও গেছে কষ্ট হতে পারে। স্বাভাবিকভাবে কিছুটা হলেও কাজে দেবে কারণ মাঠে থাকার অভ্যাসটাই গুরুত্বপূর্ণ। দল নিয়ে বলে তো লাভ নেই কারণ স্কিল যার যা আছে তার বাইরে যাবে না।’ নির্দিষ্ট কোনো পরিকল্পনা করে টুর্নামেন্টটিতে সেটি কার্যকর করা একটু কঠিন হবে বলে মনে করেন সাবেক এই বাঁহাতি স্পিনার।

তবে সবাই খেলার মাঝে না থাকলেও টুর্নামেন্টে ভালো করতে আশাবাদী রাজ্জাক। রাজ্জাক বলেন, ‘আসলে পরিকল্পনা বলতে অবশ্যই তো ম্যাচ জেতার জন্য চাইবো। সবচেয়ে বড় ব্যাপার হলো বেশিরভাগ যারা আছে তারা কিন্তু কেউ আসলে খেলার মধ্যে নাই। সবাই অন্যান্য কাজে আছে। আসলে একেবারে নির্দিষ্ট পরিকল্পনা করে সেটা কার্যকর করা একটু কঠিন।

তারপরও চেষ্টা থাকবে যেন ভালো হয় আর ভালো খেলতে পারি।’ ২০২০ সালে শুরু হয়েছিল রোড সেফটি ওয়ার্ল্ড সিরিজের প্রথম আসর। যদিও করোনা ভাইরাসের কারণে টুর্নামেন্টের মাঝ পথেই স্থগিত করা হয়েছিল সাবেক ক্রিকেটারদের এই সিরিজ। তবে মহামারীর মাঝেও মাঠে গড়াচ্ছে এবারের আসর। ৫ মার্চ থেকে শুরু হওয়া টুর্নামেন্টটির গ্রুপ পর্বের খেলা শেষ হবে ১৬ মার্চ।

গ্রুপ পর্বের খেলা শেষে শীর্ষে থাকা চার দল নিয়ে অনুষ্ঠিত হবে সেমিফাইনাল। ১৭ এবং ১৯ মার্চে অনুষ্ঠিত হওয়া দুই সেমিফাইনালের পর ২১ মার্চ মাঠে গড়াবে ফাইনাল। সারা বিশ্বেই সড়ক দূর্ঘটনায় প্রতিদিন প্রাণ হারান অনেকে। সেই সঙ্গে আহতও হন অনেক মানুষ। অনেক ক্ষেত্রে তাদের অবহেলাই দূর্ঘটনার কারণ হয়ে দাঁড়ায়। সারা বিশ্বের মানুষকে সচেতন করার উদ্দেশ্যে এই সিরিজটি আয়োজন করা হয়।

এই টুর্নামেন্টের ব্র্যান্ড এম্বাসেডর হিসেবে রয়েছেন কিংবদন্তী ক্রিকেটার শচীন টেন্ডুলকার। বাংলাদেশ লিজেন্ডস: মোহাম্মদ রফিক, জাভেদ ওমর বেলিম, খালেদ মাসুদ পাইলট, খালেদ মাহমুদ সুজন, আব্দুর রাজ্জাক, মেহরাব হোসেন অপি, হান্নান সরকার, রাজিন সালেহ, নাফিস ইকবাল, আফতাব আহমেদ, মুশফিকুর রহমান বাবু, মোহাম্মদ শরিফ, আলমগীর কবির।

Sharing is caring!

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*