বাংলাদেশকে যে কৌশলে আটকাতে চায় শ্রীলঙ্কা

ঘরের মাঠে খেলা হলে বরাবরই স্পিন বান্ধব উইকেট তৈরি করে প্রতিপক্ষকে কাবু করে শ্রীলঙ্কা। শুধু শ্রীলঙ্কা নয়, উপমাহাদেশের মাটিতে খেলা হলে বেশিরভাগ স্বাগতিক দেশই এই পন্থা অবলম্বন করে। তবে বাংলাদেশের বিপক্ষে ভিন্ন পথে হাঁটতে যাচ্ছে শ্রীলঙ্কা। বরাবরের মতো স্পিন নির্ভর উইকেট না তৈরি করে পেসারদের দিয়ে বাংলাদেশকে ঘায়েল করতে চায় তারা।

২১ এপ্রিল থেকে শুরু হওয়া টেস্টের উইকেট যে পেস বান্ধব হবে সেটা নিশ্চিত করেছেন দিমুথ করুনারত্নে। শুধু প্রথম ম্যাচই নয়, পুরো সিরিজের উইকেটই হবে পেস বান্ধব। টেস্ট সিরিজ শুরুর আগের দিন ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন শ্রীলঙ্কার এই টেস্ট অধিনায়ক।

পেস বান্ধব উইকেটে কথা মাথায় রেখে দুই ম্যাচে টেস্ট সিরিজে দলে স্কোয়াডে পেসারদের প্রাধান্য দিয়েছে শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট (এসএলসি)। যেখানে সুরাঙ্গা লাকমলের সঙ্গে রয়েছেন লাহিরু কুমারা, আশিথা ফার্নান্দো ও দিলশান মাদুশঙ্কার মতো পেসাররা। এ ছাড়া দলের প্রয়োজনে পেস বোলিং করতে দেখা যেতে পারে অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুসকে।

মূলত বাংলাদেশের বেশ কয়েকজন দুর্দান্ত স্পিনার থাকায় তাঁরা পেস বান্ধব উইকেটের পথে হাঁটছে। কারণ সাম্প্রতিক সময়ে স্পিন নির্ভর উইকেটে দারুণ বল করছে বাংলাদেশের স্পিনাররা। সেই সঙ্গে সাম্প্রতিক সময়ে পেস বান্ধব উইকেটে খেলে অভ্যস্ত হওয়াকেও এমন উইকেটে তৈরি বড় কারণে হিসেবে জানিয়েছেন তিনি।

এ প্রসঙ্গে করুনারত্নে বলেন, ‘আমরা পেস বান্ধব উইকেটে খেলব। কারণ জানেন যে, বাংলাদেশের বেশ কয়েকজন দারুণ স্পিনার রয়েছে। আমরা পুরো সিরিজে পেস বান্ধব উইকেটে খেলব। আমরা কয়েকমাস পেস বান্ধব উইকেটে খেলেছি। যে কারণে এই সিরিজ আমরা পেস বান্ধব উইকেটে খেলব।’

ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগে (আইপিএল) খেলার কারণে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টেস্ট সিরিজে খেলছেন না সাকিব আল হাসান ও মুস্তাফিজুর রহমান। তবুও বাংলাদেশকে হালকাভাবে নিচ্ছে না শ্রীলঙ্কা। সাকিব-মুস্তাফিজ না থাকলেও তামিম ইকবাল ও মুশফিকুর রহিমের ক্রিকেটার দলে রয়েছে বলে জানিয়েছেন করুনারত্নে। তিনি মনে করেন, তামিম-মুশফিকরা যেকোনো সময় ম্যাচের মোড় ঘুরিয়ে দিতে পারে।

করুনারত্নে বলেন, ‘আমি কারও নাম উল্লেখ করতে চাই না। কারণ বাংলাদেশের সবাই খুব ভালো ক্রিকেট খেলে। তারা গেল কয়েক বছর ধরে ভালো করছে না। তবে তাদের তামিম, মুশফিকের মতো ভালো ব্যাটসম্যান রয়েছে। তারা বেশ অভিজ্ঞ ক্রিকেটার। তারা যেকোনো সময় খেলা বদলে দিতে পারে।

Sharing is caring!

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*