ফাইনালে “টাই” হলে যেভাবে নির্ধারিত হবে চ্যাম্পিয়ন

রবিবার (১৪ নভেম্বর) আইসিসি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ ২০২১ এর ফাইনালে মুখোমুখি হবে অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ড। বিশ্বকাপ ফাইনালে টাই হওয়া ম্যাচেও শিরোপা হাতছাড়ার অভিজ্ঞতা আছে নিউজিল্যান্ডের। এবারও ফাইনালে টাই হলে কীভাবে ফল নির্ধারণ হবে তা ঘোষণা করেছে আইসিসি।

গ্রুপ পর্বে চারটি করে ম্যাচ জিতে সেমিফাইনালে ওঠে নিউজিল্যান্ড ও অস্ট্রেলিয়া। সেমিফাইনালে ইংল্যান্ডকে পরাজিত করে ফাইনাল নিশ্চিত করে প্রথমবারের মতো নিউজিল্যান্ড। অপরদিকে, পাকিস্তানকে হারিয়ে দ্বিতীয়বার ফাইনালে উঠেছে অস্ট্রেলিয়া।

ফাইনালের মহারণে বাংলাদেশ সময় রাত ৮টায় দুবাই আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে মুখোমুখি এই দুই প্রতিবেশি দেশ। যেই দলই চ্যাম্পিয়ন হোক, টি-টোয়েন্টির নতুন চ্যাম্পিয়ন পাবে ক্রিকেটাঙ্গন। ফাইনাল ম্যাচের জন্য রাখা হয়েছে সংরক্ষিত দিন।

যদি কোনো অনিবার্য কারণবশত রবিবারে দুই দলই কমপক্ষে ১০ ওভার করে ব্যাটিং করতে না পারে তাহলে, ম্যাচ যেখানে বন্ধ হয়েছিল সেখান থেকেই পরের দিন মাঠে গড়াবে ম্যাচটি। অর্থাৎ নির্ধারিত দিন ফলাফল পাওয়ার জন্য অন্তত ১০ ওভার ব্যাটিং করতে হবে দুই দলকেই।

ফাইনাল ম্যাচে টাই হলে কীভাবে চ্যাম্পিয়ন নির্ধারণ করা হবে সেই নিয়মও প্রকাশ করেছে আইসিসি। দুই দল ২০ ওভার বা নির্ধারিত ওভার খেলার পরে যদি ম্যাচ টাই হয়, তাহলে একটি সুপার ওভার খেলা হবে। সুপার ওভারও যদি টাই হয়, তখন হবে দ্বিতীয় সুপার ওভার খেলা।

যদি দ্বিতীয় সুপার ওভারও টাই হয়, সেক্ষেত্রে আবারও নতুন করে আরেকটি সুপার খেলা হবে। এভাবে যতক্ষণ না ম্যাচের ফলাফল আসছে, ততবারই সুপার ওভার খেলার নিয়ম রাখা হয়েছে। প্রসঙ্গত, ২০১৯ সালের ওয়ানডে বিশ্বকাপে ইংল্যান্ড ও নিউজিল্যান্ডের মধ্যকার মূল ম্যাচ টাই হয়েছিল।

আশ্চর্যজনকভাবে, সুপার ওভারটিও টাই হয়েছিল। কিন্তু বেশি বাউন্ডারি হাঁকানোর সুবাদে ইংল্যান্ডকে চ্যাম্পিয়ন ঘোষণা করা হয়েছিল। এই সিদ্ধান্ত নিয়ে চরম সমালোচনা হয়েছিল বিশ্লেষক ও দর্শক মহলে। তাই এবার সীমাহীন সুপার ওভারের নিয়ম রেখে আইসিসি।

Sharing is caring!

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*