ফাইনালের রেফারি নিয়ে দুশ্চিন্তায় আর্জেন্টিনা

ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা খেলা মানেই টানটান উত্তেজনা। খেলার মাঠে কোন দলই হার মেনে নিতে চায়না। তবে শেষ হাসি হাঁসতে হয় যে কোন এক দলকেই।আগামীকাল ভোরেই হচ্ছে সেই মহারণ। ১৪ বছর পর কোনো ফাইনালে দেখা হচ্ছে ব্রাজিল-আর্জেন্টিনার।

১০৭ বছরের ইতিহাসে এর মাগে মাত্র চারবার কোনো টুর্নামেন্টের ফাইনালে দেখা গেছে এই দ্বৈরথ। এ ম্যাচের জন্য অধীর অপেক্ষায় সবাই। উত্তেজনায় কাঁপছে ফুটবল–দুনিয়া। ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট জইর বলসোনারো যেমন এরই মধ্যে ম্যাচের স্কোর নিয়ে ভবিষ্যদ্বাণী করেছেন, তাঁর দেশ নাকি এ ম্যাচ ৫-০ ব্যবধানে জিতবে!

এমন ভবিষ্যদ্বাণী শুনে আর্জেন্টাইন অনেক সমর্থকের মনে কু-ডাক দিচ্ছে। এতটা আত্মবিশ্বাসী কেন বলসোনারো? তবে কি ম্যাচের ভাগ্য আগেই নির্ধারণ করে রাখা হয়েছে। আর্জেন্টাইন পত্রপত্রিকা এরই মধ্যে ফাইনালের রেফারি নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে। তাদের দুশ্চিন্তা ফাইনালের দায়িত্বে থাকা এস্তেবান ওস্তোজিচকে নিয়ে। আর্জেন্টাইন পত্রিকা টিওয়াইসি স্পোর্ত ওস্তোজিচের আগের সব ‘কীর্তি’ লিখে জানিয়েছে ফাইনাল নিয়ে তাদের দুশ্চিন্তার কথা।

ফাইনাল খেলছে ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা, কিন্তু খেলার সবকিছু নিয়ন্ত্রিত হবে তিন উরুগুইয়ানের হাতে। মূল রেফারি ওস্তোজিচ ও দুই লাইন্সম্যান কার্লোস বারেইরো ও মার্তিন সপ্পিরা লুইস সুয়ারেজের দেশের। তবে দুই লাইন্সম্যানকে নিয়ে নয়, মূল রেফারিকে নিয়েই দুশ্চিন্তা করছে আর্জেন্টিনা।

ওস্তোজিচের পরিচালনায় এর আগে একটি ম্যাচই খেলেছে আর্জেন্টিনা। ২০১৮ সালে কোচ স্কালোনির শুরুর দিকে মেক্সিকোর বিপক্ষে এক ম্যাচে ছিলেন এই রেফারি। সে ম্যাচে ২-০ গোলেই জিতেছিল আর্জেন্টিনা এবং সে ম্যাচে কোনো বিতর্কও জন্ম দেয়নি।

কিন্তু ব্রাজিলের বিপক্ষে গত কোপা আমেরিকার ম্যাচটাই যত সন্দেহের জন্ম দিচ্ছে। সে ম্যাচে রেফারির বেশ কিছু সিদ্ধান্ত ব্রাজিলের পক্ষে গিয়েছিল। ২-০ ব্যবধানে শেষ হওয়া সে ম্যাচে দুটি পেনাল্টির আবেদন পক্ষে পাননি মেসিরা। এ নিয়ে ম্যাচ শেষে বেশ ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়েছিলেন মেসি।

এসব ঘটনায় অবশ্য খুব বেশি হস্তক্ষেপ করার উপায় ছিল না ওস্তোজিচের। কারণ, সে ম্যাচে চতুর্থ রেফারি ছিলেন এই উরুগুইয়ান। কিন্তু চতুর্থ রেফারি হয়ে কেন এসব ঘটনায় মূল রেফারির দৃষ্টি আকর্ষণ করেননি, এ নিয়েই আপত্তি টিওয়াইসির।

এবারের টুর্নামেন্টে তিন ম্যাচে দায়িত্ব পালন করেছেন ওস্তোজিচ। এর মধ্যে ব্রাজিলের ম্যাচ ছিল একটি। ভেনেজুয়েলার বিপক্ষে সে ম্যাচে ৩-০ ব্যবধানে জিতেছে ব্রাজিল। তবে কোয়ার্টার ফাইনালে প্যারাগুয়ে ও পেরুর ম্যাচটা বিতর্কের জন্ম দিয়েছে।

প্যারাগুয়ের গুস্তাভো গোমেজকে লাল কার্ড দেখিয়েছেন। এই ডিফেন্ডার টানেলে গিয়ে ওস্তোজিচকে লড়ার আমন্ত্রণ পাঠিয়েছিলেন, পুরুষ হলে এসো লড়ি। ম্যাচ হারার পর প্যারাগুয়ের বেশ কিছু খেলোয়াড় রেগেমেগে ওস্তোজিচের দিকে তেড়ে গিয়েছিলেন।
এর আগে ২০২০ সালে আরেকটি ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা দ্বৈরথে দায়িত্ব পেয়েছিলেন ওস্তোজিচ।

Sharing is caring!

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*