পিএসজি ও রিয়াদ অল-স্টারের দ্বৈরথে ম্যাচসেরা রোনালদো

তুমুল প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ লড়াইয়ে দল হারল। কিন্তু মাঠে থাকাকালীন চেষ্টার সর্বোচ্চটাই করলেন ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো। প্রথমার্ধে পর্তুগিজ মহাতারকা নিলেন জোড়া গোলের স্বাদ। প্রতিপক্ষ হিসেবে থাকা লিওনেল মেসিরা শেষ হাসি হাসলেও দারুণ নৈপুণ্যের সুবাদে ম্যাচসেরার পুরস্কার উঠল তার হাতে।


বৃহস্পতিবার রাতে কিং ফাহাদ আন্তর্জাতিক স্টেডিয়ামে প্রীতি ম্যাচে সৌদি আরবের প্রো লিগের ফুটবলারদের নিয়ে গড়া রিয়াদ অল-স্টার একাদশের বিপক্ষে ৫-৪ ব্যবধানে জিতেছে পিএসজি।

ম্যাচের ৩৪তম মিনিটে প্রথমবার লক্ষ্যভেদ করেন ৩৭ বছর বয়সী রোনালদো। প্রথমার্ধের যোগ করা সময়ের পঞ্চম মিনিটে ফের নিশানা ভেদ করেন তিনি। দুবারই পিছিয়ে পড়া অল-স্টারকে সমতায় ফেরান তারকা ফরোয়ার্ড। তবে দ্বিতীয়ার্ধে বেশিক্ষণ মাঠে থাকা হয়নি তার। ম্যাচের ৬১তম মিনিটে তাকে বদলি করা হয়।



সফল স্পট-কিকে দলকে প্রথমবার সমতায় ফেরান রোনালদো। আন্তর্জাতিক ফুটবলের রেকর্ড গোলদাতা নিজেই আদায় করে নেন পেনাল্টি। সতীর্থের ফ্রি-কিকে হেড করার জন্য ডি-বক্সে লাফিয়ে ওঠেন রোনালদো। এগিয়ে এসে বল ঠেকাতে গিয়ে তার মুখে আঘাত করেন পিএসজি গোলরক্ষক কেইলর নাভাস। পেনাল্টির বাঁশি বাজাতে দেরি করেননি রেফারি।

ম্যাচে নিজের দ্বিতীয় গোলে স্কোরলাইন ২-২ করেন রোনালদো। ডি-বক্সে তার হেড দূরের পোস্টে লেগে ফেরার পর বল বিপদমুক্ত করতে ব্যর্থ হয় ফরাসি চ্যাম্পিয়নরা। সুযোগ লুফে নেন রোনালদো। ছয় গজ বক্সের ভেতর থেকে বাঁ পায়ের শটে লক্ষ্যভেদ করেন তিনি।



বিপুল অঙ্কের বেতন-ভাতায় গত বছরের শেষদিনে ইউরোপ ছেড়ে আড়াই বছরের চুক্তিতে আল নাসরে যোগ দেন রোনালদো। কিন্তু নতুন ক্লাবের জার্সিতে এখনও অভিষেক হয়নি পাঁচবারের ব্যালন ডি’অর জয়ী ফুটবলারের।

ইংলিশ পরাশক্তি ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডে থাকাকালে এক দর্শকের ফোন ভাঙার ঘটনায় দুই ম্যাচের নিষেধাজ্ঞা পেয়েছিলেন রোনালদো। সেকারণে আল নাসরের সবশেষ দুটি ম্যাচে খেলতে পারেননি তিনি। নিষেধাজ্ঞা শেষে প্রীতি ম্যাচের মাধ্যমে সৌদি ফুটবলে যাত্রা শুরু হয়েছে তার। আর প্রথম ম্যাচেই নিজের সামর্থ্যের ছাপ রাখেন তিনি।

Sharing is caring!