নৌকা না পেয়ে ঘোড়ায় চড়ে বহিষ্কার হলেন আ.লীগের দুই নেতা!

নৌকা না পেয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী (বিদ্রোহী) হিসেবে নির্বাচনে অংশ নিয়েছেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি। প্রতীক হিসেবে পেয়েছেন ‘ঘোড়া’। দলীয় সিদ্ধান্ত না মেনে বিদ্রোহী হিসেবে ঘোড়ায় প্রতীকে নির্বাচনে অংশ নেয়ায় দুজনকেই ব’হিষ্কার করেছে থানা আওয়ামী লীগ।

তারা হলেন- দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ উপজেলার বাস্তা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি জেডএ জিন্নাহ ও হযরতপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. আলাউদ্দিন। দলীয় সূত্রে জানা গেছে, বাস্তা ইউনিয়ন থেকে নৌকা পেয়েছেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও বর্তমান চেয়ারম্যান আসকর আলী। আর হযরতপুর থেকে নৌকা পেয়েছেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি ও বর্তমান চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন আয়নাল।

দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহবায়ক ম.ই মামুন বলেন, নৌকার বিরুদ্ধে গিয়ে নির্বাচনে অংশ নেওয়ায় জেডএ জিন্নাহকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হয়েছিল। তিনি যে জবাব দিয়েছেন তা সন্তোষজনক নয়। এ জন্য থানা আওয়ামী লীগ তাকে বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। আজকে (সোমবার) সেটা জানিয়ে দেওয়া হবে।

বাস্তা ইউনিয়নে ঘোড়া প্রতীকের প্রার্থী জেডএ জিন্নাহ বলেন, দীর্ঘদিন ধরে আওয়ামী রাজনীতির সঙ্গে নিজেকে জড়িত রেখেছি। ছাত্রলীগ, যুবলীগ করে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি হয়েছি। দলের দুঃসময়েও দলকে ছেড়ে যাইনি। হা’ম’লা-মা’ম’লা, জে’ল-জু’লু’ম সহ্য করে আওয়ামী লীগ ও বঙ্গ’বন্ধুকে বুকে ধারণ করে বেঁচে আছি।

অথচ আমরা নৌকা পাইনা, নৌকা পায় হাইব্রিড ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নামফলক ভাঙার আ’সা’মি। তিনি এক সময় বিএনপির রাজনীতির সঙ্গে জড়িত ছিলেন। তিনি বলেন, আমি নৌকার বিপক্ষে না হাইব্রিডের বিপক্ষে নির্বাচন করছি। দলীয় নেতাকর্মী ও জনসাধারণকে সঙ্গে নিয়ে ঘোড়া প্রতীক নিয়ে আসন্ন নির্বাচনে জয়ী হবো।

তবে এসব অভিযোগ অস্বীকার করে আসকর আলী জানান, তিনি কখনোই বিএনপির রাজনীতির সঙ্গে জড়িত ছিলেন না। আর নামফলক ভা’ঙার যে মা’মলা তার বিরুদ্ধে হয়েছিল, সেটা ষ’ড়য’ন্ত্রমূলক। সেই মাম’লায় তিনি বেকসুর খালাস পেয়েছেন।

এদিকে কেরানীগঞ্জ ম’ডেল থানা আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহবায়ক আলতাফ হোসেন বিপ্লব জানান, দলীয় সিদ্ধান্তের বাইরে গিয়ে নৌকা প্রতীকের বিপক্ষে নির্বাচন করায় হযরতপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. আলাউদ্দিনকে ব’হিষ্কার করা হয়েছে। এ বিষয়ে আলাউদ্দিনের বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

Sharing is caring!

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*