নেপালকে উড়িয়েও অনিশ্চিত বাংলাদেশ

বড় ব্যবধানে নেপালকে হারালে কিছুটা হলেও সম্ভাবনা থাকবে, এমন ম্যাচে হিমালয়ের দেশটিকে ঠিকই হারিয়েছে বাংলাদেশের যুবারা। তবে এশিয়ান কাপের টিকিট পেতে লাল-সবুজ দলকে এখন তাকিয়ে থাকতে হবে কাতারের দিকে। কারণ আলওয়ারি-আলঘারিবরা শেষ ম্যাচে স্বাগতিক বাহরাইনকে ৭ গোলের ব্যবধানে হারালেই কেবল টুর্নামেন্টে খেলার সুযোগ পাবে তানভীর হোসেনের দল।

বাহরাইনের মুহাম্মদ আল খলিফা স্টেডিয়ামে ম্যাচের শুরু থেকেই নেপালের রক্ষণভাগকে চেপে ধরে বাংলাদেশের ফরোয়ার্ডরা। ফলাফল পঞ্চম মিনিটেউ প্রথম গোল। ডি বক্সের ভিতর থেকে নেয়া মজিবর জনির শট প্রথমবার প্রতিপক্ষ ডিফেন্ডারের পায়ে লেগে ফিরে এলে ফিরতি শটে লক্ষ্যভেদ করেন এই ফরোয়ার্ড।

৫ মিনিটেই এগিয়ে গেলেও আক্রমনের ধার কমেনি বাংলাদেশের। বরং আরও গোলের জন্য ক্ষুধার্ত ছিলেন নোভা-রাজনরা। সপ্তম মিনিটে রাজনের শট একটুর জন্য জালের দেখা পায়নি।

দশম মিনিটে আবারও নেপালের জালে বল জড়ায় বাংলাদেশ। এবার গোলদাতা পিয়াস আহমেদ নোভা হলেও মূল কাজটা করে দিয়েছেন মজিবর। ডি-বক্সের বাইরে থেকে নেয়া তার নিখুঁত সেটপিসটা বারে লেগে ফিরে এলে সুযোগ কাজে লাগিয়েছেন নোভা।

৩ মিনিট পরে আবার সুযোগ আসে তানভীরদের সামনে। তবে গোলরক্ষককে একা পেয়েও জালে বল জড়াতে পারেননি নোভা। এরপর খেলার গতি কিছুটা কমে। বেশকিছু সুযোগ পেয়েও গোল করতে পারেননি লাল-সবুজ ফরোয়ার্ডরা। ২-০ গোলে শেষ হয় প্রথমার্ধ।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে আক্রমণের ধার বাড়ায় বাংলাদেশ। ৫২ মিনিটে তৃতীয় গোল করেন সাজেদ হোসেন নিজুম। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে এরপর আর কেউই জালের দেখা না পেলে ৩-০ গোলের জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে বাংলাদেশ।

Sharing is caring!