তুরস্ককে তালেবানের কড়া হুশিয়ারি!

সম্প্রতি মার্কিন নেতৃত্বাধীন বাহিনী আফগানিস্তান ছেড়ে চলে যাওয়ার সময় দেশটিতে তুরস্কের সেনা উপস্থিতি বাড়ানোর বিরুদ্ধে তালেবান গ্রুপ মঙ্গলবার (১৪ জুলাই) আঙ্কারাকে হুশিয়ার করে দিয়েছে। তারা কঠোর ভাষায় বলেছে, তুরস্কের এমন সিদ্ধান্ত অনেক ‘নিন্দ’নীয়’।

এর আগে, মঙ্গলবার (১৩ জুলাই) দলটি বলেছে, মার্কিন বাহিনী যখন আফগানিস্তান ছাড়ছে তখন তুরস্কের এ ধরনের সিদ্ধান্ত নিন্দনীয়। তালেবানের এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘তুরস্কের এই সিদ্ধান্ত অপরিণামদর্শী। এটি আফগানিস্তানের সার্বভৌমত্ব ও আঞ্চলিক অখণ্ডতার লঙ্ঘন। এটি আমাদের জাতীয় স্বার্থবিরোধী।’

বার্তা সংস্থা এএফপি’র বরাতে জানা যায়, আগামী মাসে বিদেশি সৈন্যরা আ’ফগানি’স্তান থেকে চলে যাওয়ার সময় কাবুল বিমানবন্দর রক্ষায় তুরস্কের সৈন্য পাঠানোর প্রতিশ্রুতির কয়েকদিন পর তালেবান গ্রুপের দেয়া এক বিবৃতিতে বলা হয়, ‘আঙ্কারার এমন সিদ্ধান্ত অপরিণামদর্শী, আমাদের সার্বভৌমত্ব ও ভূখ-গত অখ-তার চরম লঙ্ঘন এবং আমাদের জাতীয় স্বার্থ বিরোধী।’

মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আফগানিস্তান থেকে সেনা প্রত্যাহার করে নিচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র। তারা সেখান থেকে চলে আসলে চীন নিজেদের কর্তৃত্ব বিস্তার করার চেষ্টা করবে। এমনটিই মনে করেন মার্কিন ভূ-রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞ গর্ডন চ্যাং। তার মতে, যুক্তরাষ্ট্র আফগানিস্তান ছে’ড়ে আসার পর চীন সেখানে প্রবেশ করার চেষ্টা করবে। কারণ সেখানে তাদের যথেষ্ট রাজনৈতিক ও বাণিজ্যিক স্বার্থ জড়িত আছে।

মার্কিন ও ন্যাটো বাহিনীর সদস্যরা আফগানি’স্তান ছাড়তে শুরু করার পর থেকে আ’ফগা’নিস্তানে সং’ঘা’ত বেড়েছে। তালেবান চাইছে পশ্চিমা-সমর্থিত আফগান সরকারকে উৎখাত করতে। এর জের ধরে আফগান সেনাদের সঙ্গে সং’ঘ’র্ষের জেরে হ’তাহ’ত হয়েছে বহু। আফগানিস্তানের বেশির ভাগ অঞ্চল দখলের দাবি করেছে তা’লেবান।

এ কারণে আফগান বাহিনীর সদস্যরা দেশ ছেড়ে পালাতেও বাধ্য হচ্ছেন। এদিকে তালেবান আফগানিস্তানের শহরগুলোর অভ্যন্তরে যুদ্ধে জড়াতে চায় না বলে জানিয়েছেন দলটির একজন শীর্ষস্থানীয় নেতা। মঙ্গলবার টুইটারে দেওয়া পোস্টে তালেবানের মুখপাত্র আমির খান মুত্তাকি বলেন,

বর্তমানে লড়াই পার্বত্য ও মরু অঞ্চল থেকে শহরগুলোর দ্বারপ্রান্তে পৌঁছেছে। তালেবান যোদ্ধারা শহরের ভেতরে আফগান বাহিনীর সঙ্গে লড়াই করতে চায় না। শহরগুলোকে ধ্বং’সের হাত থেকে বাঁচাতে যে কোনও চ্যানেল ব্যবহার করে একটি যৌক্তিক চুক্তিতে পৌঁছানোর জন্য আমরা আমন্ত্রণ জানাচ্ছি। সূত্র: ফ্রান্স ২৪।

Sharing is caring!

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*