জোর করে ম’দ খাওয়ানো হয়েছিল মুসলিম ক্রিকেটারকে

ইংলিশ কাউন্টি ক্রিকেট খেলার সময় বর্ণবাদের শিকার হয়েছেন পাকিস্তানি বংশোদ্ভুদ মুসলিম ইংলিশ খেলোয়াড় আজিম রফিক। বেশ কয়েকদিন ধরেই বিষয়টি নিয়ে সরব তিনি। তার কথা শোানার জন্য ও এর সত্যতা যাচাইয়ের জন্য দেশটির সংসদ সদস্যদের নিয়ে একটি কমিটি গঠন করেছে।

রফিক নিজের খেলোয়াড়ী জীবনে বর্ণবৈষম্যের শিকার হওয়ার বিষয়টি নিয়ে কথা বলছেন রফিক। সেখানে একটি চমকপ্রদ কথা জানিয়েছেন ইয়র্কশায়ারের সাবেক এ ক্রিকেটার। তিনি বলেছেন একবার জোর করে তাকে মদ খাইয়েছিল ইয়র্কশায়ার ও হ্যাম্পশায়ারের এক খেলোয়াড়। যখন তার বয়স ছিল মাত্র ১৫। তবে সেই খেলোয়াড়ের নাম বলেননি তিনি।

এ ব্যপারে নিজের বক্তব্যে রফিক বলেন, ‘আমার প্রথম মদ খাওয়ার ঘটনা হলো, আমাকে আসলে চেপে ধরা হয়েছিল আমার স্থানীয় ক্লাবে, আর আমার ঠোঁটে রেড ওয়াইন ঢালা হয়েছিল। তখন আমার বয়স ১৫। সে খেলোয়াড় (যে তার ঠোটে জোর করে মদ ঢেলে দিয়েছিল) ইয়র্কশায়ারের হয়ে খেলেছিল, পরবর্তীতে হ্যাম্পশায়ারের হয়ে খেলে।’

রফিক আরো জানান দলের সঙ্গে মানিয়ে নেয়ার জন্য পরবর্তিতে তিনি নিয়মিত মদ খাওয়া শুরু করেন, কিন্তু পরে নিজের ভুল বুঝতে পারেন এবং এর জন্য বেশ অনুতপ্ত হন। তাছাড়া তিনি জানিয়েছেন ইয়র্কশায়ারের ড্রেসিং রুমে তাকে ‘কেভিন’ নামে ডাকা হত কটাক্ষ করে।

তাছাড়া তিনি আরো জানিয়েছেন ইংল্যান্ডের তারকা ব্যাটসম্যান অ্যালেক্স হেলস তাকে একটি কুকুরের নামে ডাকত, কারণ তিনি ছিলেন কালো চামড়ার মানুষ। রফিক ব্রিটিশ এমপিদের সামনে বার বার কেঁদে দিচ্ছিলেন এসব বলতে গিয়ে। সবশেষে তিনি জানান বর্ণবৈষম্যের বিরুদ্ধে তিনি রুখে দাঁড়ান, যার ফলে তার ক্যারিয়ারই শেষ করে দেয়া হয়েছিল।

Sharing is caring!

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*