জামানত হারালেন নৌকার প্রার্থী

বৃহস্পতিবার দ্বিতীয় ধাপে ৮৩৪টি ইউনিয়ন পরিষদে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। এরমধ্যে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগর উপজেলায় অনুষ্ঠিত হয় ১৩টি ইউনিয়নে নির্বাচন। ভোটগ্রহণ শেষে ফলাফল প্রকাশ করা করেছে নির্বাচন কমিশন। নির্বাচনে ১৩টি ইউনিয়নের মধ্যে ৭টিতে স্বতন্ত্র প্রার্থী ও বাকি ৬টিতে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকার প্রার্থীরা জয়ী হয়েছেন।

নির্বাচনে কোনো প্রার্থী মোট ভোটের ৮ ভাগের ১ ভাগ ভোট না পেলে তার জামানত বাজেয়াপ্ত করবে নির্বাচন কমিশন। সেই অনুযায়ী নাসিরনগর উপজেলার হরিপুর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী নৌকা প্রতীকের ওয়াসিম আহমেদের জামানত বাজেয়াপ্ত করেছেন নির্বাচন কমিশন।

ইউনিয়নবাসী ও নির্বাচন কমিশনের তথ্যসূত্রে জানা যায়, নির্বাচন কমিশন তফসিল ঘোষণার পর হরিপুর ইউনিয়নে বর্তমান ইউপি চেয়ারম্যান দেওয়ান আতিকুর রহমান আঁখিকে প্রথমে আওয়ামী লীগ দলীয় মনোনয়ন দেয়। কিন্তু নাসিরনগরে সংখ্যালঘুদের ওপর হামলা ও মন্দির ভাঙচুর মামলায় চার্জশিটভুক্ত আসামি হওয়ায় গণমাধ্যমে সমালোচনার ঝড় ওঠে। পরে দেওয়ান আতিকুর রহমান আঁখির বদলে ওই ইউনিয়নে ওয়াসিম আহমেদকে মনোনয়ন প্রদান করে আওয়ামী লীগ ।

বৃহস্পতিবার অনুষ্ঠিত নির্বাচনে ওয়াসিম আহমেদ ছাড়াও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের বহিষ্কৃত সভাপতি স্বতন্ত্র প্রার্থী ফারুক মিয়া ও আরেক স্বতন্ত্র প্রার্থী জামাল মিয়া নির্বাচন করেন। নির্বাচন কমিশন থেকে প্রাপ্ত ফলাফলে স্বতন্ত্র প্রার্থী ফারুক মিয়া আনারস প্রতিকে ৬ হাজার ১৮৬ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হন,

তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আরেক স্বতন্ত্র প্রার্থী জামাল মিয়া পেয়েছেন ৪ হাজার ১৬৯ ভোট। আর আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী ওয়াসিম আহমেদ নৌকা প্রতীকে পেয়েছেন ১ হাজার ৩৫৫ ভোট। তাই প্রাপ্ত ভোটের ৮ ভাগের এক ভাগ ভোটও না পাওয়ায় আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী ওয়াসিম আহমেদ তার জামানত হারান।

শুক্রবার সন্ধ্যায় নাসিরনগর উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মোহাম্মদ শহিদুল ইসলাম বলেন, নির্বাচনে অংশ নেওয়ায় চেয়ারম্যান প্রার্থীরা ৫ হাজার টাকা করে জামানত প্রদান করেছেন। কোন কোন প্রার্থী জামানত হারিয়েছেন আমরা তার পূর্ণাঙ্গ তালিকা করে ঢাকায় পাঠাবো।

Sharing is caring!

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*