ছাত্রীর সঙ্গে ছেলের বিয়ে দিয়ে বরখাস্ত হলেন স্কুলশিক্ষিকা

দশম শ্রেণিতে পড়ুয়া নিজের ছেলের সঙ্গে পঞ্চম শ্রেণির এক ছাত্রীর বাল্যবিয়ের ঘটনায় বরের মা চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার বেগমপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা শামসুন্নাহারকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোস্তাফিজুর রহমান।

তিনি বলেন, বাল্যবিয়ের ঘটনাটি গণমাধ্যম ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রকাশের পর ব্যাপক সমালোচনা হয়। পরে ঘটনাটি তদন্ত করার জন্য সদর উপজেলা সহকারি শিক্ষা কর্মকর্তা মাসুমা আক্তারকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। মঙ্গলবার সকালে শিক্ষিকা শামসুন্নাহারকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

এ প্রসঙ্গে সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শামীম ভূইয়া বলেন, একজন সহকারি শিক্ষক তার ছেলে দশম শ্রেণির ছাত্রের সঙ্গে নিজের স্কুলের পঞ্চম শ্রেণির ছাত্রী বিয়ে দিয়ে কাণ্ডজ্ঞানহীন কাজ করেছেন। তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় ও আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে গতকাল সোমবার বিকেলে জেলা প্রশাসক ও জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তাকে অনুরোধ করা হয়েছে।

আজ তাকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে শুনেছি। কিন্তু আদেশ এখনও হাতে পাইনি। উপজেলা শিক্ষা অফিসার উত্তম কুমার কুণ্ডু বলেন, গণমাধ্যমে বিষয়টি জানতে পেরে সোমবার সকালে উপজেলা সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা মাসুমা আক্তারকে সরেজমিনে ঘটনাস্থলে পাঠানো হয়। পরে ওই শিক্ষিকা ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে লিখিত বক্তব্য দিয়েছেন।

তিনি আরও বলেন, আমি তাৎক্ষণিক উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এবং নিয়োগকারী কর্মকর্তা জেলা শিক্ষা অফিসার বরাবর ওই শিক্ষিকার বিরুদ্ধে বিভাগীয় ও আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করার অনুরোধ জানিয়ে পত্র দিয়েছিলাম। মঙ্গলবার সকালে তাকে বরখাস্ত করা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, গত ২০ মার্চ চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার ছোটশলুয়া গ্রামের বিলপাড়ার দিনমজুর অসোক আলীর মেয়ে পঞ্চম শ্রেণিতে পড়ুয়া শারমিন খাতুনের সঙ্গে বেগমপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা শামসুন নাহার তার ছেলে আব্দুর রহমানের বিয়ে দেন।

কয়েকদিন গোপন থাকলেও বর শ্বশুরবাড়িতে বেড়াতে গেলে বিষয়টি জানাজানি হয়। এছাড়া সরেজমিনে বেগমপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দেখা যায়, মেহেদি রাঙা হাতে ক্লাস করছেন শারমিন খাতুন। ছেলের বাল্য বিয়ের দেয়ার বিষয়টি স্বীকার করেন ওই শিক্ষিকা। এ নিয়ে জেলা জুড়ে শুরু হয় নানা সমালোচনা।

Sharing is caring!

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*