চুক্তি থেকে বাদ দেওয়ার ২৪ ঘন্টার মধ্যেই বিসিবিকে নতুন বার্তা দিলেন সৌম্য

এইতো মাত্র ২৪ ঘন্টা আগে সৌম্য সরকার বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) কেন্দ্রীয় চুক্তির তালিকা থেকে বাদ পড়তে চলেছেন এমন খবর প্রচার হয়েছিল। টেস্ট, ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি তিন ফরম্যাটের কোনোটির জন্য জন্যই তার নাম সুপারিশ করা হয়নি।

আলোচনা করেই এবার চুক্তিতে সৌম্যকে রাখা হয়নি বলে এক গণমাধ্যমকে তথ্য দিয়েছে জাতীয় দল নীতিনির্ধারণী সূত্র। সর্বশেষ চুক্তিতে ৫০ ও ২০ ওভারের ফরম্যাট দুটিতে এ পেস বোলিং অলরাউন্ডারের নাম ছিল।তবে এই খবরের ২৪ ঘন্টা না যেতেই ব্যাট হাতে বিসিবিকে অন্যরকম জবাব দিলেন সৌম্য। ডিপিএলে আবারও জ্বলে উঠেছেন সৌম্য সরকার।

লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জের বিপক্ষে ম্যাচে সৌম্যর ব্যাটে চড়েই জয় পেয়েছে গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্স।ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লিগের চতুর্থ রাউন্ডের ম্যাচে বিকেএসপির চার নম্বর মাঠে মুখোমুখি হয় লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জ ও গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্স। টস হেরে ব্যাট করতে নামা লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জের হয়ে ইনিংস উদ্বোধন করতে নামেন আজমির হোসেন ও মেহেদি মারুফ।

৪ বল মোকাবেলায় কোনো রান করার আগেই আজমির সাজঘরে ফরে যান মাহাদি হাসানের শিকার হয়ে। মেহেদি মারুফের সাথে জুটি বেধে দলের রান এগিয়ে নিতে থাকেন অধিনায়ক নাইম ইসলাম। এই দুই ব্যাটসম্যানের জুটি বিচ্ছিন্ন হয় দলীয় ১৭ ও ব্যক্তিগত ১৩ রানে নাইম ইসলাম ফিরে গেলে।

শেষ পর্যন্ত মেহেদি মারুফের ২৪ বলে ২৪, সাব্বির রহয়ামানের ১৮ ও সোহাগ গাজীর ২১ রানের সাথে বাকি ব্যাটসম্যানদের ছোট ছোট সংগ্রহে ভর করে নির্ধারিত ২০ ওভারে রূপগঞ্জের সংগ্রহ থামে ৮ উইকেট হারিয়ে ১৩২ রানে।জবাবে ব্যাট করতে নেমে উদ্বোধনী জুটিতে স্কোরবোর্ডে ২১ ও ব্যক্তিগত ১৩ রানে প্যাভিলিয়নে ফিরে যান ওপেনার মাহাদি হাসান।

তবে তিন নম্বরে নামা মুমিনুল হকের সাথে জুটি বেধে সৌম্য সরকার যোগ করেন ৮২ রান।এই জুটি বিচ্ছিন্ন হয় ৪৩ বল মোকাবেলায় ৪টি চার ও ২টি ছক্কার সাহায্যে ৫৩ রানের ইনিংস খেলে সৌম্য সরকার বিদায় নিলে। সৌম্যর বিদায়ের খানিক পর বিদায় নেন মুমিনুল হকও। ২৯ বল মোকাবেলায় ২টি চার ও ১টি ছক্কার সাহায্যে ৩৪ রান করেন মুমিনুল।

এরপর জয়ের বাকি কাজটা শেষ করেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ এবং ইয়াসির আলি চৌধুরী। ইনিংসের ১৩ বল বাকি থাকতেই ৭ উইকেটে গাজী গ্রুপের জয় নিশ্চিত করেন রিয়াদ ও ইয়াসির আলি।শেষ পর্যন্ত মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ অপরাজিত ছিলেন ১২ বলে ১৫ রান করে এবং ইয়াসির আলি অপরাজিত ছিলেন ১০ বলে ১৩ রান করে।

Sharing is caring!

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*