চার-ছক্কায় আশরাফুল-নাসিরের ঝড়ো ব্যাটিং, দেখুন লাইভ

আনন্দবার্তা স্পোর্টস ডেস্ক: এবারের ডিপিএলে নিজেকে প্রমাণের পথ হিসেবে বেছে নিয়েছেন আশরাফুল ও নাসির হোসেন। নানা বিতর্কের পরও ডিপিএলে নিজের ব্যাটিংয়ের দক্ষতা দেখিয়েছেন নাসির। অন্যদিকে নিষেধাঙ্গা শেষে জাতীয় দলে ফিরতে না পারলেও বিভিন্ন লিগে নিজেকে প্রমাণ করছেন আশরাফুল। আজকের ম্যচে মুখোমুখি হয়েছে শেখ জামাল ও আবাহনী লি:। ব্যাটিংয়ে নেমে ১৭৩ রানের সংগ্রহ পায় আবাহনী। বড় লক্ষ তাড়া করতে নেমে দ্রুত ২ উইকেট হারালেও নাসির আশরাফুলের দৃঢ়তায় এখনো এগিয়ে যাচ্ছে দল।

লাইভ দেখুন

আরও পড়ুন: এভাবে চ্যাম্পিয়ন হওয়া মানেন না কোহলি নিউজিল্যান্ডের কাছে ৮ উইকেটের বিশাল হারে বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের রানার্সআপ হয়েছে ভারত। দুটি পুরো দিন বৃষ্টিতে ভেসে যাওয়ার পর সাউথ্যাম্পটনে টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনাল দেখেছে জয়-পরাজয়।

ম্যাচ গড়িয়েছে ষষ্ঠ দিনে। তবে এভাবে এক ম্যাচ জিতে চ্যাম্পিয়ন হওয়াটা মানতে পারছেন না ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহলি। তার মতে, বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনাল হওয়া উচিত তিন ম্যাচের সিরিজ। ম্যাচ শেষে কোহলি বলেন, ‘এক ম্যাচ দিয়েই টেস্টের বিশ্বের সেরা টেস্ট দল বাছাইয়ের প্রক্রিয়ায় আমি একদমই একমত নই।

টেস্ট সিরিজ যদি হয়, তিন ম্যাচজুড়ে দলের চরিত্র ফুটে ওঠে কোন দলের সামর্থ্য আছে সিরিজে ফিরে আসার বা প্রতিপক্ষকে উড়িয়ে দেওয়ার। স্রেফ দুটি দিনের চাপের পর হুট করে কোনো দল আর ভালো টেস্ট দল নয়, এটা হতেই পারে না। আমি এটা বিশ্বাসই করি না।’

ভারত অধিনায়ক আরও বলছেন, ‘এই খেলাটাই দেখুন, যেভাবে এগিয়েছে, যতটা সময়ই আমরা পেয়েছি, আপনি কেন চাইবেন না আরও দুটি টেস্টে দুই দলের লড়াই চলুক এবং তার পর টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের যোগ্য বিজয়ী নির্ধারিত হোক! ইতিহাস যদি দেখেন, যতগুলো অসাধারণ টেস্ট সিরিজ হয়েছে, তিন ম্যাচ বা পাঁচ ম্যাচ ধরে তাদের লড়াই লোকে মেনে রেখেছে ও সিরিজগুলো স্মরণীয় হয়ে আছে।

আমি বলছি টেস্ট ক্রিকেটের স্বার্থেই এবং এই লড়াই অন্তত তিন ম্যাচ ধরে হওয়া উচিত যেন এটি সত্যিকার অর্থেই স্মরণীয় কিছু হয়।’ বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের প্রথম ফাইনাল নিয়ে কোহলি বলেন, ‘এই ফাইনালের (এক ম্যাচের) রোমাঞ্চকর দিক হলো, যেকোনো কিছুই হতে পারে।

আমরা ভালো করেই জানি, ক্রিকেট কতটা অস্থির হতে পারে, বিশ্বকাপসহ অন্যান্য অনেক জায়গায় আমরা সেসবের নমুনা দেখেছি। একটি ম্যাচই হলে তা অনন্য এক নাটকীয়তা তৈরি করে, যা খুবই উত্তেজনাময়। যেকোনো দিন যেকোনো কিছু হতে পারে। তবে এতে সন্দেহ নেই যে, কোনো সিরিজে যত বেশি ম্যাচ হয়, ততই তা উন্মুক্ত হয় ও অনেক কিছু ফুটে ওঠে।’

Sharing is caring!

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*