ক্ষমা চাইলেন ইমরান খান

সম্প্রতি এক নারী বিচারককে নিয়ে মন্তব্যের জেরে আদালত অবমাননার অভিযোগে করা একটি মামলায় ক্ষমা চেয়েছেন পাকিস্থান তেহরিক-ই-ইনসাফের (পিটিআই) চেয়ারম্যান ও দেশটির সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। তার ক্ষমা চাওয়ার পর আদালত মামলাটি স্থগিত করেছেন।

আজ বৃহস্পতিবার (২২ সেপ্টেম্বর) ইসলামাবাদ হাইকোর্টের শুনানিতে ইমরান খান বলেন, আদালত চাইলে আমি ঐ নারী বিচারকের কাছে যাব এবং তার কাছে ক্ষমা চাই। আমি কখনো আদালত বা বিচার বিভাগের অনুভুতিতে আঘাত করব না।

ইমরান আরো জানান ভবিষ্যতে তিনি আর এধরনের কোনো কাজ করবেন না। এর আগে সহযোগী শাহবাজ গিলকে গ্রেফতারের ঘটনায় ২০ আগস্টের একটি সমাবেশে নারী বিচারক জেবা চৌধুরী ও ইসলামাবাদের সিনিয়র পুলিশ কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে ‘পদক্ষেপ’ নেয়ার হুমকি দেন ইমরান খান। পাকিস্তানের আইন অনুযায়ী, আদালত অবমাননার মামলায় দোষী সাব্যস্ত হলে অন্তত পাঁচ বছর সরকারি দায়িত্ব পালন করার ক্ষেত্রে অযোগ্য বিবেচিত হতেন ইমরান খান।

তবে ক্ষমা চাওয়ার পর আদালত তার বিরুদ্ধে মামলা চালিয়ে না যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। ইমরান খানকে ৩ অক্টোবর পরবর্তী শুনানির দিন তার হলফনামা দাখিল করতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।ইসলামাবাদের সমাবেশে মন্তব্যের জন্য চলতি সপ্তাহে ইমরান খানের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসবাদের মামলা প্রত্যাহার করেছে একই আদালত।

Sharing is caring!