ওরা ক্ষমতায় গেলে সীমান্ত বন্ধ করে দেবে!

আফ’গানি’স্তানে তা’লেবা’ন ফের ক্ষমতায় গেলে পাকিস্তান সীমান্ত বন্ধ করে দেবে বলে জানিয়েছেন পাকিস্তানি পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মাহমুদ কোরেইশি। একইসঙ্গে, মার্কিন বাহিনী প্রত্যাহারের পরে আফ’গানি’স্তানে স’হিং’স’তা ও অ’রাজ’কতা আবারো মাথা চাড়া দিয়ে উঠতে পারে বলে আশ’ঙ্কা করছেন তিনি। গত রোববার মুলতানে সাপ্তাহিক মিডিয়া ব্রিফিংয়ে এসব কথা জানিয়েছেন পাকিস্তানের প্রভাবশালী এ মন্ত্রী।

শাহ মাহমুদ কোরেইশি বলেছেন, পাকিস্তান ইতোমধ্যে থেকে ৩৫ লাখ আফগা’ন শর’ণার্থী গ্রহণ করেছে। এর বেশি আর নিতে পারবে না। তিনি বলেন, আমরা আর (আ’ফগান শর’ণার্থী) নিতে পারব না, সীমান্ত বন্ধ করতেই হবে। আমাদের জাতীয় স্বার্থের সুরক্ষা নিশ্চিত করতে হবে।

পাকিস্তানি মন্ত্রী আরও বলেন, আফ’গানি’স্তানে শান্তিপ্রতিষ্ঠায় কূটনৈতিক প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখবে পাকিস্তান এবং দেশটিতে গণতান্ত্রিক পদ্ধতিতে নির্বাচিত সরকারকে স্বাগত জানাবে। ১৯৮৯ সালে সোভিয়েত বাহিনী প্রত্যাহারের পর আফ’গানি’স্তানে বিভিন্ন গোষ্ঠীর সং’ঘ’র্ষে’র জেরে লাখ লাখ আ’ফগান না’গরিক পালিয়ে পাকিস্তানে আশ্রয় নেয়।

মার্কিন বাহিনীর হাতে ক্ষমতাচ্যুত হওয়ার আগপর্যন্ত আ’ফগানি’স্তান শা’সন করেছে তা’লেবা’ন। ২০০১ সালে ৯/১১ হা’ম’লার জেরে আ’ফগানি’স্তানে সা’মরিক অভি’যান শুরু করে মার্কিন বা’হিনী। এর প্রায় ২০ বছর পর চলতি বছরের ১১ সেপ্টেম্বরের মধ্যে দেশটি থেকে সব সেনা প্রত্যা’হারের ঘোষণা দিয়েছেন যু’ক্তরাষ্ট্রের বর্তমান প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন।

তবে যুক্তরাষ্ট্রের সেনাপ্রত্যাহার এবং কাতারের রাজধানী দোহায় আ’ফগান-তা’লেবা’ন শা’ন্তিআলোচনা সত্ত্বেও আফ’গানি’স্তানে সাম্প্রতিক দিনগুলোতে ব্যাপক স’হিং’স’তা চলছে। এতে গত কয়েক সপ্তাহে সেখানে সরকারি-বেসরকারি অনেক লোক প্রাণ হারিয়েছেন। বর্তমানে আফ’গানি’স্তানের একাংশ নিয়ন্ত্রণ করছে তা’লেবা’ন। শান্তিআলোচনা সফল হলে তারা আবারো আফগান সর’কারের অংশ হয়ে উঠবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

Sharing is caring!

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*