ওদের বিশ্বসেরা খেলোয়াড় থাকলেও চ্যাম্পিয়ন হতে পারবে না!

চলতি কোপা আমেরিকায় এখনও পর্যন্ত দুর্দান্ত ফর্মে রয়েছেন আর্জেন্টিনা অধিনায়ক লিওনেল মেসি। দলকে ফাইনালে তোলার পথে ৪ গোল ও ৫ এসিস্ট করেছেন বর্তমান বিশ্বের অন্যতম সেরা এ ফুটবলার। টুর্নামেন্টের সর্বোচ্চ গোলদাতা ও সেরা ফুটবলার- দুই পুরস্কারের দৌড়েই সবার চেয়ে এগিয়ে রয়েছেন মেসি।

তার সামনে এখন একটাই বাধা, ব্রাজিল। আগামী রোববার ব্রাজিলের বিপক্ষে ফাইনাল ম্যাচটি জিতলেই সাফল্যের ষোলোকলা পূর্ণ হবে মেসি ও আর্জেন্টিনার। তবে ১৪ বারের কোপা চ্যাম্পিয়নদের স্বপ্নযাত্রা তছনছ করে দিতে প্রস্তুত রয়েছে পাঁচবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নরাও।

আর্জেন্টিনা দলে লিওনেল মেসির মতো বিশ্বসেরা খেলোয়াড় আছেন- এটি মেনেই ফাইনাল ম্যাচে নিজেদের ফেবারিট ঘোষণা দিলেন ব্রাজিলের তরুণ ফরোয়ার্ড রিচার্লিসন। তিনি বলেছেন, ‘লাতিন আমেরিকায় এই প্রতিদ্বন্দ্বিতাটা রয়েছে। এর বাইরে দুর্দান্ত সব খেলোয়াড়রা আছে এখানে।

আমরা পছন্দ করি বা না করি, তাদের দলে বিশ্বের সেরা খেলোয়াড় (মেসি) রয়েছে। এটি প্রতিদ্বন্দ্বিতাটা আরও বাড়িয়ে দেয়।’ তবে ব্রাজিলই চ্যাম্পিয়ন হবে জানিয়ে রিচার্লিসন আরও বলেছেন, ‘আর্জেন্টিনার মোকাবিলা করা কতটা কঠিন আমরা জানি। শুধু এখনের জন্য নয়। এটি সুদীর্ঘ অতীত ধরেই হয়ে আসছে।

মারাকানায় ফাইনাল ম্যাচটি খুবই কঠিন হতে চলেছে জানি। তবে চ্যাম্পিয়ন আমরাই হবো।’ ব্রাজিল-আর্জেন্টিনার মধ্যকার এ ফাইনাল ম্যাচটি মাঠে বসে দেখবেন আন্তর্জাতিক ফুটবলের অভিভাবক সংস্থা ফিফার প্রেসিডেন্ট জিয়ান্নি ইনফান্তিনো। উত্তর ও মধ্য আমেরিকার ফুটবলের সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রক সংস্থা কনকাকাফের একটি অনুষ্ঠানের জন্য মায়ামিতে রয়েছেন ইনফান্তিনো।

সেখান থেকেই ফাইনালের কয়েক ঘণ্টা আগে ব্রাজিলের রিও ডি জেনেইরোতে চলে যাবেন তিনি। শুধু ফিফা প্রেসিডেন্টই নন, ফাইনাল ম্যাচে দর্শক প্রবেশের অনুমতি দেয়ার কথাও ভাবছে কনমেবল। এরই মধ্যে প্রত্যেক খেলোয়াড়, অফিসিয়াল ও কর্মকর্তাদেরকে দুজন করে অতিথি মাঠে নেয়ার অনুমতি দেয়া হয়েছে।

এর বাইরে মারাকানার দর্শক ধারণক্ষমতার ১০ শতাংশ (৭৮০০ জন) দর্শক মাঠে প্রবেশের অনুমতি দেয়ার কথা ভাবা হচ্ছে। তবে সেগুলো টিকিট বিক্রির মাধ্যমে নয়। বরং স্পন্সর প্রতিষ্ঠানগুলোকে শুভেচ্ছাস্বরুপ তাদের আত্মীয় বা ঘনিষ্ঠজনদের অনুমতি দেয়া হতে পারে।

Sharing is caring!