এরদোগানের ইস্তাম্বুল খাল ও বিশ্ব রাজনীতির খেলা

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়্যেব এরদোগান সে দেশের বৃহত্তম শহর ইস্তাম্বুলের ইউরোপীয় অংশকে দু’টুকরা করে একটি খাল খনন প্রকল্পের উদ্বোধন করেছেন যার লক্ষ্য হচ্ছে কৃষ্ণ সাগর এবং মারমার ও ভূমধ্যসাগরের মধ্যে সংযোগ তৈরি করা।

সুয়েজ বা পানামা খালের আদলে কৃত্রিমভাবে খনন করা এই ‘ক্যানাল ইস্তাম্বুল’ বা ইস্তাম্বুল খালের লক্ষ্য হচ্ছে বসফরাস প্রণালীর বিকল্প তৈরি করে ওই দুই সাগরের মধ্যে আরো বেশি সংখ্যক জাহাজ চলাচলের পথ সুগম করা।

তাদের মতে, এর মাধ্যমে ইস্তাম্বুল শহরের বিপদ বাড়বে, এবং ওই অঞ্চলের পরিবেশের অপূরণীয় ক্ষ’তি হয়ে যাবে। কিন্তু এরদোগানের যুক্তি হচ্ছে – এই খাল তার দেশের উন্নয়নে এক নতুন অধ্যায়ের সূচনা করবে।

শনিবার এই প্রকল্পের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তুর্কি প্রেসিডেন্ট বলেন, বসফরাস প্রণালী দিয়ে ১৯৩০-এর দশকে প্রতিবছর ৩ হাজার জাহাজ পারাপার হতো, আর এখন প্রতি বছর ৪৫ হাজার জাহাজ এই প্রণালী অতিক্রম করে।

এই শতকের মাঝামাঝি নাগাদ, অর্থাৎ ২০৫০ সালের দিকে এই সংখ্যা ৭৮ হাজার দাঁড়াবে বলে তিনি জানান।এত বিপুল সংখ্যক জাহাজের চলাচল ইস্তাম্বুল শহরের জন্য চরম ঝুঁ’কি তৈরি করবে বলে এরদোগান তার বক্তব্যে উল্লেখ করেন।

ক্যানাল ইস্তাম্বুলের প্রকল্পের ওয়েবসাইটে দেয়া তথ্য অনুযায়ী, খালটি ওই শহরের ইউরোপীয় অংশের মধ্য দিয়ে খনন করা হবে। ৪৫ কিলোমিটার দীর্ঘ এই খালের প্রস্থ হবে ২৭৫ মিটার। আর গভীরতা হবে ২০.৭৫ মিটার।

তুর্কি সরকারের বিভিন্ন সময়ে দেয়া হিসাব অনুযায়ী, পুরো প্রকল্পটিতে ব্যয় হবে দেড় থেকে আড়াই হাজার কোটি ডলার।এই খালটির উদ্বোধন হওয়ার কথা রয়েছে ২০২৩ সালে। তুর্কি প্রজাতন্ত্র স্থাপনের শতবর্ষ পালিত হবে ওই বছরই।

তবে শুধু খাল খননই নয়, বরং কথা রয়েছে, এই প্রকল্পের আওতায় তৈরি হবে নতুন একটি আন্তর্জাতিক সমুদ্রবন্দর, কন্টেইনার টার্মিনাল, কিছু কৃত্রিম দ্বীপ এবং খালের দুই পাশ বরাবর বেশ কয়েকটি আধুনিক শহর।

সে সময় অনেকেই ‘একে রাজনীতির চমক এবং কিছুদিন পর লোকে এর কথা ভুলে যাবে’ বলে মনে করলেও একেপি সরকার ২০১১ থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত এই খাল খননের সম্ভাব্যতা নিয়ে নানা রকম সমীক্ষা চালায়।

কিন্তু বসফরাসের বিকল্প একটি খাল খনন নিয়ে চিন্তাভাবনা শুরু হয়েছিল বেশ অনেক আগে – সেই ওসমান বংশীয় সুলতান সুলেমান দ্য ম্যাগনিফিসেন্টের আমলে।তুর্কি পত্রিকা হুরিয়াতের খবর অনুযায়ী, তার আর্কিটেক্ট মিমার সিনান এই পরিকল্পনাটি তৈরি করলেও অজ্ঞাত কারণে তা বাতিল করা হয়।

Sharing is caring!

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*