এবার লকডাউনে কঠোর হবে পুলিশ

পুলিশ রাষ্ট্রের অপরিহার্য একটি অঙ্গ। জনগণের জানমালের নিরাপত্তা বিধান তাদের দায়িত্বে। তাই প্রত্যাশা সংগত যে তারা দুষ্টের দমন আর শিষ্টের পালনকে মূলনীতি হিসেবে অনুসরণ করবে। নতুন খবর হচ্ছে, দেশে করোনাভাইরাসের অবনতি হওয়ায় আগামীকাল সোমবার ( ২৮ জুন) থেকে লকডাউনের ঘোষণা দিয়েছে সরকার।

এই সময়ে লকডাউন কিছুটা শিথিলতা থাকলেও আগামী বৃহস্পতিবার (১ জুলাই) থেকে দেশব্যাপী সর্বাত্মক লকডাউনের ঘোষণা দিয়েছে সরকার। দেশে করোনায় মৃ’ত্যু শতাধিক ছাড়িয়েছে বেশ কয়েকবার। চলতি বছরের ১৯ এপ্রিল দেশে করোনায় সর্বোচ্চ ১১২ জনের মৃ’ত্যুর রেকর্ড ছিলো।

কিন্তু সেই রেকর্ড ভেঙে আজ রবিবার ( ২৭ জুন) মৃত্যুর নতুন রেকর্ড দেখলো বাংলাদেশ। এই সময়ে সর্বোচ্চ ১১৯ জনের মৃ’ত্যু হয়েছে। এদিকে সরকার ঘোষিত লকডাউনকে সফল করতে প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছে পুলিশ। চলতি বছরের বিভিন্ন সময় ঘোষিত কয়েক দফা বিধিনিষেধের মতো এবার শিথিলতা দেখাবে না পুলিশ।

এতদিন বিধিনিষেধের মধ্যে সরকারের উচ্চ পর্যায়ের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী মাঠ পর্যায়ে মুভমেন্ট পাস নিয়ে কড়াকড়ি ছাড়া তেমন কোনো কঠোর পদক্ষেপ নেয়নি পুলিশ। তবে এবারের লকডাউনে পুলিশ হার্ডলাইনে থাকবে বলে জানা গেছে।

পুলিশ সদরদফতর সূত্রে জানা যায়, চলতি বছর বিভিন্ন সময়ে আরোপ করা বিধিনিষেধের সময় হার্ডলাইনে না গিয়ে জনগণকে সচেতন করার কাজ করেছে পুলিশ। বিধিনিষেধের সময় গণপরিবহন ও শপিংমল চালু রাখা এবং ঈদযাত্রা থাকায় সরকারের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী মাঠ পর্যায়ে হার্ডলাইনে যেতে পারেনি পুলিশ।

তবে মুভমেন্ট পাস ও চেক পোস্টের মাধ্যমে বিধিনিষেধকে কার্যকর করার প্রচেষ্টা ছিল পুলিশের। কিন্তু এবার পরিস্থিতি ভিন্ন। করোনার ভারতীয় ডেল্টা ধরন সারা দেশে ছড়াচ্ছে বলে বিভিন্ন গবেষণায় উঠে এসেছে, তাই এবারের লকডাউনে আর কোনো ছাড় দেওয়া হবে না।

দেশব্যাপী পুলিশের প্রতিটি ইউনিটকে ইতোমধ্যে নির্দেশনাও দেওয়া হয়েছে প্রস্তুত থাকার জন্য। লকডাউনের প্রজ্ঞাপন হাতে পাওয়ার পরপরই মাঠ পর্যায়ে পুলিশের কার্যক্রম দৃশ্যমান হব। পুলিশ সদরদফতর সূত্রে জানা যায়, লকডাউনের প্রজ্ঞাপন এখনো জারি না হওয়ায় ঠিক কীভাবে পুলিশ মাঠে থাকবে তা এখনো সুনির্দিষ্টভাবে জানানো হচ্ছে না।

প্রজ্ঞাপন জারি হওয়ার পর এ বিষয়ে বিস্তারিত জানানো হবে। তবে আসন্ন লকডাউনে পুলিশ কীভাবে মাঠ পর্যায়ে কাজ করবে এ বিষয়ে বাহিনীটির উচ্চ পর্যায়ে বেশ কিছু আলোচনা ও কর্মপন্থা ঠিক হয়েছে। আগের বিধিনিষেধের মতো দেশব্যাপী বিভিন্ন চেকপোস্ট বসাবে পুলিশ।

জরুরি প্রয়োজন ছাড়া যেন কেউ রাস্তায় বের হতে না পারে তা চেকপোস্টের মাধ্যমে নিশ্চিত করবে পুলিশ। কেউ নির্দেশনা অমান্য করলে তাকে ছাড় না দিয়ে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া হবে। যেকোনো পরিস্থিতি সামাল দেওয়ার জন্য রাস্তায় চেকপোস্ট ছাড়াও সার্বক্ষণিক পুলিশের টহল থাকবে।

এছাড়া জরুরি কাজে বের হলেও শতভাগ স্বাস্থ্যবিধি মেনে সবাইকে বের হতে হবে, নাহলে পুলিশি ব্যবস্থার সম্মুখীন হতে হবে। এ বিষয়ে ঢাকা মহানগর পুলিশের এক উর্ধ্বতন কর্মকর্তা বলেন, এবারের লকডাউন হবে সর্বাত্মক। কাউকেই বিন্দুমাত্র সুযোগ দেওয়া হবে না নিয়ম ভঙ্গের।

লকডাউন বাস্তবায়নের জন্য প্রস্তুতি নিতে আমাদের কাছে ইতোমধ্যে মৌখিক নির্দেশনা এসেছে। প্রজ্ঞাপন জারি হওয়ার পর অফিসিয়াল নির্দেশ চলে আসবে আমাদের কাছে। এরপর থেকেই মাঠ পর্যায়ের কার্যক্রম শুরু হবে।

Sharing is caring!

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*