এই মুহূর্তে বিশ্বসেরা ৫ মিডফিল্ডার!

ফরওয়ার্ডরা ব্যালন ডি’অর জিতবেন এটা যেন এক প্রকার নিয়ম হয়ে উঠেছে। ডিফেন্ডার, গোলরক্ষক কিংবা কোনো মিডফিল্ডারের বর্ষসেরা হওয়ার নজির কেবল কালেভদ্রেই দেখা যায়। ফরওয়ার্ডদের বাইরে সবশেষ ২০১৮ সালে ফ্রান্স ফুটবল সাময়িকীর সেরার মুকুট জিতেছিলেন রিয়াল মাদ্রিদের ক্রোয়েশিয়ার মিডফিল্ডার লুকা মডরিচ।

এর আগে ও পরে একচেটিয়া রাজত্ব করেছেন দুই ফরওয়ার্ড লিওনেল মেসি ও ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো। এই যুগলের দাপটের কারণে আন্দ্রেস ইনিয়েস্তা এবং জাভি হার্নান্দেজের মতো বিশ্বমানের মিডফিল্ডারও সেরার স্বীকৃতি পাননি। সময়ের হাত ধরে জাভি-ইনিয়েস্তার মতো কয়েকজন মিডফিল্ডারের উত্থান হয়েছে বর্তমান ফুটবল সম্রাজ্যে।

এদের প্রত্যেকেই ব্যালন ডি’অর জয়ের ক্ষমতা রাখেন। অনেকের মতে মেসি-রোনালদো যুগের শেষলগ্ন চলছে এখন। এরপরই দৃশ্যপটে আসতে পারেন কোনো এক মিডফিল্ডার কিংবা ডিফেন্ডার। আজকের প্রতিবেদন তাদের নিয়েই। একনজরে দেখে নেওয়া যাক ভবিষ্যতের সম্ভাব্য পাঁচ ব্যালন ডি’অর প্রত্যাশী মধ্যমাঠের সারথিকে।

নিকোলো বারেল্লা: ইতালিয়ান সিরি’এ লিগের গত মৌসুমের সেরা মিডফিল্ডার ভাবা হয় বারেল্লাকে। দীর্ঘ ১১ বছর পর ইন্টার মিলানের লিগ জয়ে তার অবদান অসামান্য। ২০১৯ সালে কালিয়ারি থেকে ধারে মিলানে খেলতে আসেন ২৪ বছর বয়সী বারেল্লা।

পরে গত মৌসুমে ২৯ মিলিয়ন পাউন্ডের বিনিময়ে তাকে রেখে দেয় মিলান জায়ান্টরা। বিপুল পরিমান অর্থ যে ইন্টার মিলান জলে ফেলেননি তা গেল মৌসুমে প্রমাণ দিয়েছেন বারেল্লা। ইতালিয়ান এই মিডফিল্ডার আলো ছড়িয়েছেন ইউরো চ্যাম্পিয়নশিপেও। তার দুর্দান্ত পারফরম্যান্সের সুবাদে ৫৩ বছর পর ইউরোর রুপালি ট্রফি জিতেছে ইতালি। ক্লাব এবং জাতীয় দলের সাফল্য এবারই বারেল্লাকে বর্ষসেরার লড়াইয়ে নিয়ে এসেছে।

ফিল ফোডেন: ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের উদীয়মান বর্ষসেরা ফুটবলার নির্বাচিত হয়েছেন ফোডেন। তার দল ম্যানচেস্টার সিটিও দাপুটে পারফরম্যান্সে লিগ জিতে নিয়েছে। লিগে ১৭ ম্যাচে শুরুর একাদশে খেলেছেন তিনি। এ সময়ে নয় গোল করার পাশাপাশি পাঁচটি অ্যাসিস্ট করেছেন ইংলিশ তারকা।

সিটিজেনদের একাডেমি থেকে উঠে আসা এই প্রতিভাকে ভাবা হচ্ছে আগামী দিনের সম্ভাব্য ব্যালন ডি’অর জয়ী। ২১ বছর বয়সী এই মিডফিল্ডার আগুন ঝরিয়েছেন এবারের ইউরো চ্যাম্পিয়নশিপেও। ফর্মটা অব্যাহত থাকলে পরবর্তী সময়ে ব্যালন ডি’অরের দাবি জানিয়ে রাখতে পারেন ফোডেন।

এদুয়ার্দো কামাভিঙ্গা: ২০১৯ সালে প্যারিস সেন্ট জার্মেইর বিপক্ষে কামাভিঙ্গা অবিশ্বাস্য যে পারফর্মটা করেছেন তা আজও চোখে লেগে আছে ফুটবল বিশ্লেষকদের। মাত্র ১৬ বছর বয়সে রেঁনের জার্সিতে অভিষেক হয় তার। ফ্রান্স দলেও এতদিনে অভিষেক হতে পারতো এই ডিফেন্সিভ মিডফিল্ডারের। কিন্তু পগবা-এমবাপ্পেদের কারণে এখনো সুযোগ হয়নি তার। গত মৌসুমে ফরাসি লিগে ২৮ ম্যাচে খেলে রক্ষণভাগকেই বেশির ভাগ সময় আগলে রেখেছেন তিনি। অনেকে তার মধ্যে কিংবদন্তি রবার্তো কার্লোসের ছায়া দেখছেন।

ফ্রেঙ্কি ডি জং: নেদারল্যান্ডসের এই প্রজন্মের অন্যতম সেরা মিডফিল্ডার ডি জং। বার্সেলোনার জার্সিতে গেল দুই মৌসুমে আগুন ঝরিয়েছেন ডাচ তারকা। গেল ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপের নিজের জাত চিনিয়েছেন তিনি। তার বিশেষ গুণ ডিফেন্সিভ মিডে খেলতে পারাটা।

নিজেকে ফুটবল বিশ্বে ডি জং তুলে ধরেছেন আয়াক্সে থাকাকালীন। দুই বছর আগে ৭৭.৪ মিলিয়ন পাউন্ড খরচ করে তাকে উড়িয়ে এনেছে বার্সা। তিনি হতাশ করেছেন পিএসজি ও ম্যানচেস্টার সিটিকে। ২৪ বছর বয়সী এই তারকা ভবিষ্যতের বর্ষসেরা হওয়ার দৌড়ে আছেন।

পেদ্রি: অনেকেই তাকে তুলনা করছেন ইনিয়েস্তা-জাভির সঙ্গে। কেউ কেউ মনে করেন দুই কিংবদন্তির চেয়েও বেশি প্রতিভাবান পেদ্রি। গেল ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপে উদীয়মান সেরা ফুটবলার নির্বাচিত হয়েছেন স্প্যানিশ মিডফিল্ডার। তবে নিজের আগমনী বার্তা গত মৌসুমেই দিয়েছেন পেদ্রি। স্প্যানিশ লা লিগায় বার্সেলোনার জার্সিতে দারুণ ফারফর্ম করেছেন তিনি।

২০১৯ সালে মাত্র ১৬ বছর বয়সে পেশাদার ফুটবলে অভিষেক হয় পেদ্রির। গত বছর তাকে লাস পালমাস থেকে উড়িয়ে আনে বার্সা। ক্লাব ফুটবলে পারফর্ম করার পুরস্কার হিসেবে এ বছরই স্পেনের জার্সিতে অভিষেক হয়েছে তার। পেদ্রিকে নিয়ে এখন থেকেই বাজি ধরতে শুরু করেছেন ফুটবল বিশ্লেষকরা।

Sharing is caring!

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*