ইসরায়েলকে স্বীকৃতি না দেয়ার কারণ জানালো কাতার

ইসরায়েলকে স্বীকৃতি না দেয়া এবং দেশটির সঙ্গে সম্পর্ক স্বাভাবিক করার সম্ভাবনা আবারো উড়িয়ে দিয়েছে কাতার। তেল আবিবের সঙ্গে কুয়েত সম্পর্ক স্থাপন না করার ঘোষণা দেয়ার কয়েক দিনের মাথায় বিষয়টি স্পষ্ট করলো দোহা।

গতকাল শুক্রবার মার্কিন টেলিভিশন চ্যানেল সিএনবিসিতে কাতারি পররাষ্ট্রমন্ত্রীর শেখ আব্দুর রহমান বিন আল থানির একটি ​সাক্ষাৎকার সম্প্রচার করা হয়। তাতে তিনি বলেন, ফিলিস্তিনি ভূখণ্ডে দখলদারিত্বের কারণে ইসরায়েলকে স্বীকৃতি দেয়া হয়নি এতদিনেও।

এই দখলদারিত্ব এবং কয়েক দশকের চলামান সংঘা’ত বন্ধ না করা পর্যন্ত তেল আবিবের সঙ্গে সম্পর্ক স্বাভাবিক করবে না দোহা। এ কথা পুনর্ব্যক্ত করে শেখ আব্দুর রহমান বিন আল থানি বলেন, যুগের পর যুগ ধরে চলা এই সমস্যা কেবল ইসরায়েলের সঙ্গে সম্পর্ক স্বাভাবিক করা হলেই সমাধান হয়ে যাবে না।

এখন পর্যন্ত ফিলিস্তিনের সঙ্গে শান্তি প্রতিষ্ঠায় তেল আবিব কোনো পদক্ষেপ নেয়নি উল্লেখ করে তিনি বলেন, তারা শিগগিরই আলোচনায় বসছে, এমন কোনো আভাসও পাওয়া যায়নি।

এর আগে গত ২৮ মে ইসরায়েলকে সতর্ক করে কাতারের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছিলেন, ফিলিস্তিনিদের সন্তুষ্ট করার মতো পদক্ষেপ নিতে তারা যতদিন ব্যর্থ হবে, ততদিন আমাদের নীতিতে কোনো পরিবর্তন আসবে না।

ইসরায়েলের সঙ্গে কূটনৈতিক বা বাণিজ্যিক সম্পর্ক কোনো দিন স্থাপন করা হবে না উল্লেখ করে তিনি বলেন, ফিলিস্তিনি প্রতিরোধ সংগঠনগুলোর সঙ্গে যু’দ্ধবিরতি চলছে তেল আবিবের। তা সত্ত্বেও আল-আকসা মসজিদের বিরুদ্ধে উস্কানিমূলক তৎপরতা অব্যাহত রয়েছে তাদের।

পার্সটুডে জানায়, সদ্য সমাপ্ত গাজা যুদ্ধে ইসরায়েল-হামাস অস্ত্রিবিরতি প্রতিষ্ঠায় মধ্যস্থতায় ভূমিকা রাখে কাতার। যুক্তরাষ্ট্র ও ইরান সংকট সমাধানেও মধ্যস্থতা করতে আগ্রহের বিষয়টি ফের সামনে এনেছে দেশটি।

Sharing is caring!

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*