আসন্ন টি-২০ বিশ্বকাপে আইসিসির সম্ভাব্য ৫ সেরা ক্রিকেটার

আগামী ১৬ই অক্টোবর থেকে অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে শুরু হতে চলেছে ক্রিকেটের সবচেয়ে বড় কার্নিভাল আইসিসি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ। এইবারের প্রতিযোগিতাটি এই জনপ্রিয় ইভেন্টের অষ্টম সংস্করণ। ইতিমধ্যে দুইবার এই ক্ষুদ্রতম ফরম্যাটের বিশ্বকাপ ট্রফি ঘরে তুলেছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। অন্যদিকে ভারত, পাকিস্তান, ইংল্যান্ড, শ্রীলঙ্কা ও অস্ট্রেলিয়া একবার করে এই শিরোপা জয়ের স্বাদ নিতে পেরেছে। দক্ষিণ আফ্রিকা ও নিউজিল্যান্ডের মতো বড় ক্রিকেট খেলা দেশগুলি এখনও এই ট্রফির ছুয়ে দেখা হয়ে উঠেনি।

আসন্ন ২০২২ সালের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের জন্য, আইসিসি সম্প্রতি ৫ জন ক্রিকেটার সম্পর্কে ভবিষ্যৎবাণী করেছে যারা আইসিসির মতে এই বিশ্বকাপে তারকা হয়ে উঠতে পারে। দেখাতে পারে অনব্য কিছু পারফরম্যান্স। কিন্তু এই তালিকায় মধ্যে কেবলমাত্র একজন তারকা ভারতীয় খেলোয়াড় জায়গা পেয়েছেন।

ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট কাউন্সিল এইমুহূর্তে ভারতীয় দলের সবচেয়ে ভালো ফর্মে থাকা মিডল-অর্ডার ব্যাটসম্যান সূর্যকুমার যাদবকে তাদের এই তালিকায় স্থান দিয়েছেন। এশিয়া কাপের পারফরম্যান্সে বাদে গোটা বছরে ভারতীয় জার্সিতে দুর্দান্ত ছন্দে রয়েছেন তিনি। ভারতের সূর্যকুমার যাদব ছাড়াও অস্ট্রেলিয়ার ওপেনার ডেভিড ওয়ার্নার, শ্রীলঙ্কার অলরাউন্ডার হাসরাঙ্গা, ইংল্যান্ডের অধিনায়ক জস বাটলার ও পাকিস্তানের ওপেনার ও উইকেটরক্ষক মোহাম্মদ রিজওয়ানকে এই তালিকায় বেছে নেওয়া হয়েছে।

সূর্যকুমার যাদব এই বছর আইসিসি টি-টোয়েন্টি র‌্যাঙ্কিংয়ে বিশ্বের দুই নম্বর ব্যাটার হিসাবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করে ফেলেছেন। চলতি বছরে অসাধারণ ক্রিকেট খেলে তিনি এখনও অবধি টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে ৭৩২ রান করে ফেলেছেন। চলতি বছরে এখনও কমপক্ষে তিনি ৬টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলার সুযোগ পাবেন। তাই আশ্চর্য হওয়ার কিছু থাকবে না যদি তিনি বৎসারান্তে ১০০০ রানের গন্ডি অতিক্রম করে যান।

সূর্যকুমার যাদব আরও একটি বড় মাইলফলক ছুঁয়েছেন সম্প্রতি। এর আগে এক ক্যালেন্ডার বর্ষে টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে সবচেয়ে বেশি ছক্কা মারার রেকর্ড ছিল পাকিস্তানের তারকা ওপেনার এবং উইকেট রক্ষক মোহাম্মদ রিজওয়ানের নামে। তিনি ২০২১ সালে এক ক্যালেন্ডার বর্ষে ৪২ টি টি-টোয়েন্টি ছক্কা মেরেছিলেন। চলতি বছরে সূর্যকুমার যাদব তার চেয়ে পাঁচটি ম্যাচ কম খেলে ইতি মধ্যে ৪৫ টি ছক্কা মেরেছেন এবং এখনো তিন মাসে প্রচুর টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট খেলবেন তিনি।

Sharing is caring!