আমার স্বপ্ন ‘বিশ্বমানের’ বোলার হবো

দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে প্রথম জয়ে বল হাতে অবদান রেখেছেন বাংলাদেশ দলের পেসার তাসকিন আহমেদ। একদিন বিশ্বমানের বোলার হবেন সে স্বপ্ন দেখেন তাসকিন। অতীতে প্রোটিয়াদের মাটিতে তাঁদের হারাতে পারেনি বাংলাদেশ। তবে তা এবার করে দেখিয়েছে টাইগাররা। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে প্রথম ওয়ানডে জয়ের কারিগর তাসকিনকেও বলা যায়।

আর কেনই বা বলা যায় না! বল হাতে যে নিয়েছেন গুরুত্বপূর্ণ তিনটি উইকেট। র‍্যাসি ডুসেন ও ডেভিড মিলার মিলে যখন দক্ষিণ আফ্রিকার জয়ের আশা টিকিয়ে রেখেছিলেন সে সময় গুরুত্বপূর্ণ জুটি ভাঙেন তাসকিন। এ ফাস্ট বোলার চাইছেন প্রথম ওয়ানডের মতো আরও ম্যাচে জয়ে অবদান রাখতে।

“আলহামদুল্লাহ যে গতকাল ম্যাচ জেতানোর পেছনে আমার ভালো অবদান ছিল। আসলে সব ম্যাচের আগেই একই প্রসেস ও বেসিক নিয়ে শুরু করি। পরবর্তীতে পরিস্থিতি অনুযায়ী প্ল্যান পরিবর্তন করতে হয়। আমার স্বপ্ন, আমি বিশ্বমানের বোলার হবো এবং ম্যাচ জয়ের অবদান রাখব। দোয়া করবেন যেনো সিরিজ জয় করে দেশে ফিরতে পারি।”

ধীরে ধীরে উন্নতি হচ্ছে বাংলাদেশের ফাস্ট বোলিং বিভাগ। বাংলাদেশের মতো স্পিন-নির্ভর দেশে পেসারদের ম্যাচ জেতাতে দেখা স্বপ্নের মতোই। তাসকিন বললেন এখন ম্যাচের পরিস্থিতি পড়েই বল করছেন পেসাররা। সেই সাথে পেসারদের এ উন্নতির জন্য সুজনকেও কৃতিত্ব দিলেন তিনি। “আমরা ফাস্ট বোলাররা অনেকদিন ধরেই হার্ড-ওয়ার্ক করছি।

সবাই সবার শক্তিমত্তা-দুর্বলতা নিয়ে কাজ করছি। সুজন স্যার দলের সবাইকে অনেক হেল্প করছেন। আমরা আসলে ভালো ইউনিট হিসেবে বেসিক ঠিক রেখে, পরিস্থিতি পড়ে ম্যাচের কোন সময়ে কোন ধরণের বল করা উচিত তা করার চেষ্টা করছি। আমাদের পারফরম্যান্স গ্রাফ উপরের দিকে যাচ্ছে। সামনে আরও ম্যাচ জেতাতে হবে।”

তাসকিন বাদেও প্রোটিয়াদের বিপক্ষে দুই উইকেট নিয়েছেন বাঁহাতি পেসার শরিফুল। অবশ্য উইকেটবিহীন ছিলেন মুস্তাফিজ। তবে তাসকিনের কথা যে ভুল নয় তার প্রমাণ পরিসংখ্যানই। গত দুই বছরে বাংলাদেশের সেরা পাঁচ বোলারদের মধ্যে তিন জনই পেসার। সাকিব-মিরাজ মিলে নিয়েছেন ১০৫ উইকেট অন্যদিকে তিন পেসার- তাসকিন, মুস্তাফিজ, শরিফুল মিলে নিয়েছেন ১৪০ উইকেট।

Sharing is caring!

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*