আজই মেসির শেষ দিন!

অনেক জল্পনা-কল্পনা শেষ হতে চলে আর মাত্র কয়েকঘণ্টা বাকি। আজ রাত ১২টার পরই বার্সেলোনার সঙ্গে লিওনেল মেসির চুক্তির মেয়াদ শেষ হয়ে যাবে । এরপর কী ভাবে কি হবে এখন পর্যন্ত অজানা? চুক্তির মেয়াদ না বাড়ালে এরপর আর মেসি বার্সেলোনার থাকবেন না।

তিনি হয়ে যাবেন ক্লাবহীন এক ফুটবলার। নতুন করে চুক্তি হওয়ার আগ পযন্ত তিনি হবে মূল্যহীন ফুটবলার পরে যদি বার্সার সঙ্গে চুক্তি হয়ও, মাঝে যে সময়টা কেটে যাবে, সে সময়টা মেসি কারো থাকবেন না, কোনো ক্লাবেরই না।

অথচ, বার্সেলোনা চায়, এক মিনিটের জন্যও যেন মেসি ক্লাবছাড়া কোনো ফুটবলার না হন। কিন্তু সমস্যা হলো, মেসিকে বার্সা নতুন যে প্রস্তাব দিয়ে রেখেছে, তাতে এখনও পর্যন্ত হ্যাঁ কিংবা না কিছুই বলেননি মেসি। যে কারণে চুক্তিটাও হয়নি এখনও পর্যন্ত।

আজ রাত ১২টার আগে নতুন চুক্তি স্বাক্ষর না হলে বার্সেলোনার জার্সি গায়ে হয়তো আর দেখা যাবে না মেসিকে। এরপর তিনি ইচ্ছা করলে যে কোনো ক্লাবে যেতে পারবেন, চাইলে বার্সায়ও থাকতে পারবেন। অর্থ্যাৎ আজ রাত ১২ টার পর পুরোপুরি স্বাধীন হয়ে যাবেন তিনি।

২০০০ সালে মাত্র ১৩ বছর বয়সে বার্সেলোনায় যোগ দেন আর্জেন্টিনার এই তারকা ফুটবলার। ৩০ জুন রান ১২টায় বার্সার সঙ্গে চুক্তি শেষ হয়ে যাবে মেসির। অথচ নতুন চুক্তির বিষয়ে এখনও বার্সেলোনার পক্ষ থেকে কোনো কিছু জানানো হয়নি।

আজ রাত ১২টার মধ্যে মেসির সঙ্গে চুক্তি করতে না পারলে বেশ লজ্জায় পড়তে হবে বার্সেলোনার প্রেসিডেন্ট হুয়ান লাপোর্তাকে। দলের আর্থিক দুরবস্থার কারণে এমনিতেই বেশ চাপে রয়েছেন তিনি। এই মুহূর্তে বার্সেলোনা ক্লাবের ঋণ রয়েছে প্রায় ৮৯ হাজার কোটি টাকা।

২০১৭ সালে শেষবার চুক্তিতে স্বাক্ষর করেছিলেন মেসি। সে চুক্তি শেষ হতে চলেছে বুধবার। গত মাসে এক সংবাদ মাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে লাপোর্তা বলেন, ‘আমি চাই মেসি খুব তাড়াতাড়ি হ্যাঁ বলুক আমাদের। তার সঙ্গে সব সময় যোগাযোগ রেখে চলেছি আমরা।

মেসির স্বাক্ষর করার ব্যাপারে আমি আশাবাদী। আমরা কৃতজ্ঞ যে ও বার্সেলোনায় থাকতে চায়।’ আর্জেন্টিনার হয়ে সব চেয়ে বেশি ম্যাচ খেলা মেসি যদিও এখন ব্যস্ত কোপা আমেরিকা নিয়ে। কোয়ার্টার ফাইনালের প্রস্তুতি নিচ্ছেন তিনি। এর মধ্যেই আজ (বুধবার) তিনি বার্সার সঙ্গে নতুন চুক্তিতে সই করেন কি না সেই দিকে নজর থাকবে সমর্থকদের।

Sharing is caring!

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*