আইপিএল থেকে সরাসরি জাতীয় দলে

ভারতের ক্রিকেটকে অনন্য এক উচ্চতায় পৌছে দিয়েছে ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগ (আইপিএল)। বিশ্বের সবথেকে জাকজমকপূর্ণ এই ফ্র্যাঞ্চাইজি ক্রিকেট টুর্নামেন্টট দেশটির জাতীয় দল নির্বাচনের ক্ষেত্রেও বড় ধরনের প্রভাব রেখে চলেছে। আইপিএলে ভালো করতে পারলে সুযোগ মেলে জাতীয় দলে খেলার, সেটা যেকোন ফরম্যাটেই হোক না কেন।

আইপিএল খেলে টেস্ট কিংবা ওয়ানডে দলে সুযোগ পাওয়াটা ঠিক নয় বলে অনেকে অভিযোগ করেন। সেই আইপিএল সমালোচকদের দলে নতুন করে যোগ দিলেন নোমান ওঝা। সদ্যই আন্তর্জাতিক ক্রিকেটকে বিদায় জানানো ভারতীয় এই উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান মনে করেন, আইপিএল দিয়ে টি-টোয়েন্ট দল ঘোষণা করা সম্ভব কিন্তু ওয়ানডে বা টেস্ট নয়।

কিছুটা আক্ষেপ নিয়েই আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের ইতি টেনেছিলেন ওঝা। ঘরোয়া ক্রিকেটের পরীক্ষিত এই ক্রিকেটার জাতীয় দলের হয়ে অভিষেক হলেও পর্যাপ্ত সুযোগ পাননি। এরপর আইপিএলেও ছিলেন কিছুটা উপেক্ষিত। অথচ তাঁর সামনেই আইপিএলের দুই-এক মৌসুমে পারফরম্যান্স করে রীতিমতো তারকা বনে গেছেন হার্দিক পান্ডিয়া, জসপ্রিত বুমরাহদের মতো ক্রিকেটাররা।

যারা কিনা ঘরোয়া ক্রিকেটে তেমন পরীক্ষিত না হলেও ফ্র্যাঞ্চাইজি টুর্নামেন্ট খেলে ভারত দলের তিন ফরম্যাটেই জায়গা করে নিয়েছিলেন। এ নিয়ে তাই বেশ অসন্তুষ্ট ওঝা। তাঁর মতে ২০ ওভারের আইপিএল দিয়ে কেবল টি-টোয়েন্টির দল বাছাই করা যেতে পারে, ওয়ানডে বা টেস্ট নয়। আর যদি এই টুর্নামেন্ট দিয়েই তিন ফরম্যাটে দল বাছাই করা হয় তাহলে আলাদা করে ঘরোয়া ক্রিকেটের কি দরকার সেই প্রশ্নও রেখেছেন তিনি।

সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে নিজের ক্ষোভ ঝেড়ে ওঝা বলেন, ‘আপনি যদি ঘরোয়া ক্রিকেটে নিয়মিত রান করতে থাকেন, মানুষ তা দেখবে না। যদি আইপিএলে আপনি কোনভাবে দুইটি ভালো ইনিংস খেলতে পারেন, তাহলে আপনি টেস্ট, ওয়ানডে আর টি-টোয়েন্টির তিন স্কোয়াডেই জায়গা পাবেন। আমি মনে করি, আইপিএল থেকে আপনি টি-টোয়েন্টি দল নির্বাচন করতে পারেন, ওয়ানডে বা টেস্ট নয়। যদি তাই করেন তাহলে প্রথম শ্রেনীর ক্রিকেটের দরকার কি?’

ওঝার মতে, আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের তুলনায় ঘরোয়া বা প্রথম শ্রেনীর ক্রিকেটে নিয়মিত পারফর্ম করা বেশ কঠিন। এ প্রসঙ্গে পার্থক্য উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘প্রথম শ্রেনীর ক্রিকেট খেলতে হলে প্রচুর শৃঙ্খলা আর ফিটনেসের প্রয়োজন। ঘরোয়া ক্রিকেট এত সহজ নয়। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে আপনি সব সময় ভালো সুযোগ-সুবিধা পাবেন, আন্তর্জাতিক মানসম্পন্ন ফিজিও পাবেন। ঘরোয়া ক্রিকেটে আপনি ভোর পাঁচটায় বিমানে উঠবেন, অনুশীলন করবেন এবং ঐদিনেই ম্যাচ খেলবেন।

এটা ব্যতিক্রম এবং শরীরের জন্য কষ্টকর।’ ভারতীয় দলের জার্সিতে একটি করে টেস্ট ও ওয়ানডে এবং দুটি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলা ওঝা তিন ফরম্যাটে রান করেছেন যথাক্রমে ৫৬, ১ ও ১২। উইকেটরক্ষক এই ব্যাটসম্যানের আইপিএল ক্যারিয়ার তেমন একটা গৌরবের নয়। আইপিএলে মোট ১১৩ ম্যাচ খেলে ১৫৫৪ রান করেছেন ওঝা। গড় মাত্র ২০! আইপিএল তাঁর সর্বোচ্চ ৯৪।

Sharing is caring!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *