অবসান ঘটতে যাচ্ছে ‘আম্পায়ার্স কল’ বিতর্কের!

ডিসিশন রিভিউ সিস্টেমের (ডিআরএস) নিয়মে পরিবর্তনের কথা ভাবছে আইসিসি, মুছে যেতে পারে বিতর্কিত আম্পায়ার্স কলের নিয়ম। আম্পায়ার্স কল নিয়ে বিতর্ক নতুন কিছু নয়, সর্বশেষ ভারত-ইংল্যান্ডের চেন্নাই টেস্টে সামনে আসে আম্পায়ার্স কল বিতর্কের বিষয়টি। বেশ কিছুদিন ধরেই এই নিয়মটি বাদ দেওয়ার দাবী জানিয়ে আসছিলো শচীন টেন্ডুলকারদের মতো কিংবদন্তি ক্রিকেটাররাও।

সিদ্ধান্তকে বিতর্ক মুক্ত করতেই ক্রিকেটেও নিয়ে আসা হয় ডিসিশন রিভিউ সিস্টেম (ডিআরএস), এটার সুবিধাও বেশ লক্ষণীয়। কিন্তু প্রযুক্তির ব্যবহারেও পুরোপুরি বিতর্ক মুক্ত হতে পারেনি ডিআরএস, একই ধরনের আউটে দুই ধরণের সিদ্ধান্ত দেওয়া হয় আম্পায়ার্স কলের নিয়মে।

যারা নিয়মিত ক্রিকেট অনুসরণ করেন তাদের জন্য বুঝতে সমস্যা না হলেও নতুন এবং কম বোঝা সমর্থকদের জন্য সেটা তৈরি করে বিভ্রান্তিকর, কারণ একই ভাবে বল পিচ করে স্ট্যাম্পে হিট করলেও শুধুমাত্র আম্পায়ার্স কলের সৌজন্যেই আউট কিংবা নটআউটের ভিন্ন সিদ্ধান্ত দেওয়া হয়।

এই বিভ্রান্ত দূর করতে এবার উদ্যোগ নিতে যাচ্ছে ক্রিকেটের সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রক সংস্থা আইসিসি, ক্রিকেটের আইন প্রণয়নকারী সংস্থা এমসিসিও ডিআরএসে আম্পায়ার্স কল বাদ দেওয়ার বিষয়ে আলোচনা করেছে। যেখানে অধিকাংশ সদস্যই বিতর্কিত আম্পায়ার্স কল বাদ দেওয়ার পক্ষে মত দিয়েছেন।

এমসিসির সভায় প্রাথমিক ভাবে আম্পায়ার্স কল বাদ দেওয়ার বিষয়ে আলোচনার পর এক বিবৃতি প্রদান করেছে। সেখানে রিকি পন্টিং, অ্যালিস্টার কুক, সৌরভ গাঙ্গুলি, কুমার সাঙ্গাকারা, কুমার ধর্মসেনা, শেন ওয়ার্ন, মাইক গেটিং, ব্রেন্ডন ম্যাককালাম, রমিজ রাজা, সুজি বেটসদের অধিকাংশই পক্ষে মত দিয়েছেন।

বিবৃতিতে এমসিসি জানিয়েছে, “ডিসিশন রিভিউ সিস্টেমে লেগ-বিফোর উইকেটের ক্ষেত্রে আম্পায়ার্স কলের ব্যবহার নিয়ে আলোচনা হয়েছে। বিশেষ করে একই বলে আম্পায়ারের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী যখন আউট বা নট আউট দুটিই হচ্ছে, এটা দেখে সমর্থকেরা বিভ্রান্ত হচ্ছেন। সদস্যদের মতে, মাঠের সিদ্ধান্তকে গুরুত্ব না দিয়ে সরাসরি আউট বা নট আউট দিয়ে দিলেই সবার জন্য ভালো।

কোন আম্পায়ার্স কল নয়। কোন নিয়ম বাদ দিলেই হয় না, তার বিকল্প সমাধানও খুঁজে বের করতে হয়। এমসিসিও আম্পায়ার্স কলের বিকল্প হিসেবে নতুন নিয়ম চালুর বিষয়ে আলোচনা করেছে, “স্টাম্পে হিটিংয়ের নিয়ম আগের মতোই থাকবে, আউট হতে হলে বলের অন্তত পঞ্চাশ ভাগ স্টাম্পে থাকতে হবে। তবে এটা চালু হলে অন্য রিভিউগুলোকে ব্যর্থ বলে গণ্য করা হবে। এমসিসির এই আলোচনা কিংবা পরামর্শ আইসিসির ক্রিকেট কমিটির কাছে পৌঁছে দেওয়া হবে, চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়ার দায়িত্ব তাদেরই।

Sharing is caring!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *